Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / নির্বাচন সংক্রান্ত / ইউপি নির্বাচন প্রার্থী বাছাইয়ে হিমশিম খাচ্ছে জেলা আ’লীগের শীর্ষ নেতাদের

ইউপি নির্বাচন প্রার্থী বাছাইয়ে হিমশিম খাচ্ছে জেলা আ’লীগের শীর্ষ নেতাদের

Election - 8 (a)শহীদুল্লাহ কায়সার; কক্সভিউ :

কক্সবাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে জোর প্রস্তুতি চলছে। আওয়ামীলীগের জেলার শীর্ষ নেতারা ব্যস্ত চুড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রণয়নে। কেন্দ্র থেকে ইতোমধ্যে আগামীকাল ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তালিকা প্রেরণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে জেলা আওয়ামীলীগ’র সভাপতি/সাধারণ সম্পাদককে। গত কয়েকদিন ধরে প্রার্থী তালিকা প্রণয়ন করতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে দেশের আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতাদেরকে। কাকে বাদ দিয়ে কার নাম কেন্দ্রে পাঠাবেন। এ নিয়ে দ্বিধা দ্বন্দ্বে পড়ে গেছেন তাঁরা। শুধু জেলার শীর্ষ নেতা নন। উপজেলা এমনকি ইউনিয়নের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকদেরও ঘাম ঝরছে এ কাজ সম্পন্ন করতে গিয়ে। সবচেয়ে বেশি বেগ পোহাতে হচ্ছে জেলা আওয়ামী লীগ’র শীর্ষ নেতাদের।

৩১ জানুয়ারি নির্বাচিত হওয়ার দেড় মাসের মধ্যেই তাঁরা মুখোমুখি হচ্ছেন কঠিন চ্যালেঞ্জের। এই প্রতিবেদকের সঙ্গে মুঠোফোনে আলাপকালে যে কথা স্বীকারও করলেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা। বলেন, চ্যালেঞ্জ অনেক আগেই শুরু হয়ে গেছে। প্রার্থীর তালিকা প্রণয়নের কাজ চলছে। শুধু মনোনয়ন দেয়া নয়। মনোনয়ন প্রদানের পর মনোনীত প্রার্থীকে জিতিয়ে আনার দায়িত্ব ও তাঁদের পালন করতে হবে। কেমন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেবেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সংগঠনের নীতি আদর্শের প্রতি আস্থা, এলাকায় জনপ্রিয় ও গ্রহণযোগ্য সর্বোপরি নির্বাচিত হওয়ার যোগ্যতা সম্পন্ন প্রার্থীকেই মনোনয়ন দেয়া হবে।

সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীদের লক্ষ্যও এখন আওয়ামীলীগ’র মনোনয়ন লাভ। যে কোন উপায়ে হতে হবে সরকার দলীয় প্রার্থী। তাহলে বিজয়ী হওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র। এই বিম্বাস থেকেই তাঁরা মরিয়া হয়ে উঠেছেন আওয়ামী লীগ’র মনোনয়ন লাভের জন্য। এজন্য ইউনিয়ন থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত সর্বত্র জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। গত কয়েকদিন ধরে এ লক্ষে সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে নেতাদের বাসায় ধর্ণাও দিচ্ছেন।

উল্লেখ্য নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২২ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে জেলার ১৯ ইউপি’র নির্বাচন। ওই নির্বাচনী অংশগ্রহণকারীদের ২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে মনোনয়ন পত্র দাখিল করতে হবে। এরপর ২ মার্চের মধ্যে যে কোনদিন প্রার্থীতা প্রত্যাহারে সুযোগ পাবেন তাঁরা। দেশে এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত হবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। চেয়ারম্যান পদের দলীয় প্রতীকের আওতায় রাখা হলে মেম্বার পদ রাখা হয়েছে এর বাইরে। দেশের বৃহত্ রাজনৈতিক দলগুলো তাঁদের প্রার্থী নির্ধারণ করতে কাজ শুরু করে দিয়েছে জোরে শোরে। আওয়ামীলীগ গঠন করেছে মনোনয়ন বোর্ড। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হয়েছেন এই বোর্ডের প্রধান। ১৯ ফেব্রুয়ারি বসবে বোর্ডের বৈঠক। ওই বৈঠকেই নির্ধারিত হবে কারা হবেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী।

%d bloggers like this: