শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫১ অপরাহ্ন

এক উপজেলায় একাধিক ওয়ার্ড : জেলা পরিষদ নির্বাচনে কোন কেন্দ্রে ভোট দিবেন উপজেলা প্রতিনিধিরা

election-jila-parishad
শহীদুল্লাহ্ কায়সার; কক্সভিউ :

আগামি ২৮ নভেম্বর জেলা পরিষদ নির্বাচন। ওই নির্বাচনে জেলার ১ হাজার ৩ জন জনপ্রতিনিধির মধ্যে ৯৮৫ জন তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পাবেন। নির্ধারিত ১৫ টি ওয়ার্ডের জন্য স্থাপিতব্য ১৫টি কেন্দ্রের মধ্যে নিজ কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবেন তাঁরা। এ ক্ষেত্রে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যানদের ভোট প্রদান নিয়ে দেখা দিয়েছে জটিলতা। এ ছাড়া প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের ভোটের ফলাফল সমান হলে কোন পদ্ধতি অবলম্বন করে বিজয়ী প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে তা নিয়েও দেখা দিয়েছে প্রশ্ন।

জেলা প্রশাসক ও রিটার্র্নিং অফিসার কর্তৃক নির্ধারিত সীমানার মধ্যে শুধুমাত্র কুতুবদিয়া উপজেলাতে রয়েছে ১টি ওয়ার্ড। বাকী উপজেলাগুলোতে রয়েছে একাধিক ওয়ার্ড। শুধু চকরিয়া উপজেলাতেই রয়েছে ৪টি ওয়ার্ড। এক উপজেলার বেশিরভাগ ইউনিয়ন পড়েছে এক ওয়ার্ডে আর শুধু ১টি ইউনিয়নকে রাখা হয়েছে অন্য ওয়ার্ডে। এ ধরনের ওয়ার্ডের সংখ্যাও কম নয়। একটি উপজেলায় ১ জন চেয়ারম্যান এবং ১ জন করে ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান রয়েছেন। তাঁরা কোন কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন তাও এখনো স্পষ্ট নয়। অথচ নির্বাচনের আর মাত্র ১ মাস ২ দিন সময় বাকী।

বর্তমানে নির্ধারিত সীমানা অনুযায়ী, পুরো কুতুবদিয়া উপজেলা নিয়ে গঠন করা হয়েছে ১ নং ওয়ার্ড। মহেশখালী উপজেলায় পড়েছে ২ ও ৩ নং ওয়ার্ড। পেকুয়া উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠন করা হয়েছে ৪ নং ওয়ার্ড। পেকয়ার শিলখালী ইউনিয়নসহ পুরো চকরিয়া উপজেলা নিয়ে গঠন করা হয়েছে ৫, ৬, ৭ ও ৮ নং ওয়ার্ড। কক্সবাজার পৌরসভাসহ সদর উপজেলার ৯টি  ইউনিয়ন নিয়ে ৯ ও ১০ নং ওয়ার্ড গঠন করা হলেও ভারুয়াখালী ইউনিয়নকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে ১১ নং ওয়ার্ডে। যেখানে রামু উপজেলার আরো ৩টি ইউনিয়ন রশিদনগর, জোয়ারিয়ানালা ও ফতেখাঁরকুল রয়েছে। রামুর অন্যান্য ইউনিয়নগুলোর সমন্বয়ে গঠন করা হয়েছে ১২ ও ১৩ নং ওয়ার্ড। পুরো উখিয়া উপজেলার সাথে টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নকে রাখা হয়েছে ১৪ নং ওয়ার্ডে। টেকনাফের বাকী ৫টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠন করা হয়েছে ১৫ নং ওয়ার্ড।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মোজাম্মেল হোসেন বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় উপজেলার নির্বাচিত প্রতিনিধিগণ যে ই্উনিয়নে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন; সেই ইউনিয়নটি যে ওয়ার্ডের অন্তভূক্ত সেই ওয়ার্ডের ভোটার তাঁরা। সেখানেই ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ফলাফল সম্পর্কে তিনি বলেন, নির্বাচনে ফলাফল সমান হলে লটারির মাধ্যমে বিজয়ী প্রার্থী নির্ধারণ করা হবে না। পুনরায় ভোট গ্রহণ করেই বিজয়ী প্রার্থী নির্ধারণ করা হবে।

এদিকে, জেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সরগরম জেলা নির্বাচন অফিস। শনিবার একদিনেই ৫ সদস্য প্রার্থী কিনলেন মনোনয়নপত্র। নির্বাচন উপলক্ষে সরকারি ছুটির দিন শুক্র ও শনিবার খোলা থাকবে নির্বাচন অফিস। প্রার্থীদের সুবিধার্তেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে।

https://www.facebook.com/coxviewnews

Design BY Hostitbd.Com