শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

কক্সবাজারে দুর্যোগ পরবর্তি মৃতদেহ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক সেমিনার

আর নয় পরিচয় বিহীন সৎকার : সঠিক সৎকারে আইন প্রয়োজন

dipu

দীপক শর্মা দীপু, কক্সভিউ :
দুর্যোগে সৃষ্ট মৃতদেহ দ্রুত উদ্ধার, শনাক্তকরণ, হস্তান্তর, যথাযথ সৎকার করাসহ যাবতীয় ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম সঠিক ও যথোপযুক্ত পদ্ধতি অনুসরণপূর্বক সম্পন্ন করার  উদ্দেশ্যে কক্সবাজারে দুর্যোগ পরবর্তি মৃতদেহ ব্যবস্থাপনা বিষয় সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।
২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ত্রাণ মন্ত্রালয়ের যুগ্ম সচিব ড. অর্ধেন্দু শেখর রায় বলেন- ‘যে কোন দুর্যোগ পরবর্তি অনেক মৃতদেহের পরিচয় পাওয়া না যাওয়ায় তাদের যেমন-তেমন করে সৎকার করা হয়। অনেক সময় বিকৃত মৃতদেহ সনাক্ত করতে না পারায় হিন্দু না মুসলিম, বৌদ্ধ না খ্রীষ্টান সম্প্রদায় তা না বুঝেও এবং বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে সৎকার করা হয়। এতে একদিকে যেমন পবিবার মৃত্যুর খবর না পেয়ে সারাজীবন আহাজারি করচ্ছে তেমনি একজন মানুষ তার মৃত্যু পরবর্তি সঠিক সৎকার পাওয়ার অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই আন্তর্জাতিকভাবে এখন মৃত্যু পরবর্তি সনাক্ত ও পরিচয়পূর্বক সৎকার করার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হচ্ছে। একই ভাবে বাংলাদেশেও তা বাস্তবায়ন করা হবে।’

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির হেলথ কেয়ার প্রজেক্ট ম্যানেজার ডা: মোহাম্মদ রাশদুজ্জামান মন্ডল বলেন- ‘দুর্যোগ পরবর্তি মৃতদেহ ব্যবস্থাপনা নিয়ে বাংলাদেশে কোন নীতিমালা বা আইন নেই। তাই মৃতদেহ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে আইন বা নীতিমালা প্রয়োজন।’

ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অফ দ্য রেড ক্রস’র (আইসিআরসি) আঞ্চলিক সমন্বয়কারি জস পাবলো বারাইবার বলেন- ‘দুর্যোগ পরবর্তি মৃতদেহ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করার পূর্ব শর্ত হচ্ছে তথ্য সংগ্রহ করা, উদ্ধার করা ও সঠিকভাবে সৎকার করা। আর এই তিনটি কাজ সমাধান করতে পূর্ব প্রস্তুতি হচ্ছে সমন্বয়, প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম, নিরাপত্তা, দ্রুত যোগাযোগ ও কর্মীদের হাতে কলমে প্রশিক্ষণ।’

সেমিনারে সেনা বাহিনী, নৌ-বাহিনী, বিজিবি, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, চিকিৎসক, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, সাংবাদিকসহ ১২ টি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠান সংঞ্চালনা করেন ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অফ দ্য রেড ক্রসের প্রোটেশশন অফিসার রোকসানা জাহান।

https://www.facebook.com/coxviewnews

Design BY Hostitbd.Com