Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / কক্সবাজার কেন্দ্রীয় মহাশ্মশান কমিটির বিবৃতি

কক্সবাজার কেন্দ্রীয় মহাশ্মশান কমিটির বিবৃতি

indexকক্সবাজারের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের একমাত্র শবদাহ এর স্থান হচ্ছে শহরের কস্তুরাঘাটস্থ কক্সবাজার কেন্দ্রীয় মহাশ্মশান। প্রাচীনকাল থেকে এই শ্মশানে যাতায়াতের যে রাস্তা ছিল তা স্থানীয় ভূমিদস্যুরা দখল করে নেয়। ফলে শ্মশানে মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া কষ্টসাধ্য হয়ে উঠে। পরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দীর্ঘদিনের দাবীর প্রেক্ষিতে তত্কালীন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক জয়নাল বারী শ্মশানের যাতায়াতের জন্য রাস্তার জায়গা দেয় এবং তা কক্সবাজার পৌরসভার উদ্যোগে রাস্তা নির্মাণ করা হয়। যা কক্সবাজার কেন্দ্রীয় মহাশ্মশানের সড়ক নামে জেলা প্রশাসক উদ্বোধন করেন এবং কক্সবাজার পৌরসভায় তা মহাশ্মশানের রাস্তার নামে নথিভুক্ত হয়। এই রাস্তাটি নির্মাণ হওয়ার পর থেকে স্থানীয় কিছু দুর্বৃত্ত এ রাস্তায় চলাচলের জন্যও দখলের জন্য ষড়যন্ত্র করে আসছে।

ইতিপূর্বে শ্মশানের গেইট ভাংচুর করা হয়। যা পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ পরিদর্শন করেছেন এবং শ্মশান কমিটির পক্ষ থেকে সদর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। এরপর দুর্বৃত্তরা শ্মশানের গেইটের তালা ভাংচুর করে অসংখ্যবার। এসব দুর্বৃত্ত ও ভ‚মিদস্যুরা মৃতদেহ শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার সময় ঢিল ছুঁড়ে এবং ব্যঙ্গ ভাষায় টিজ করে। শ্মশানে গেইটে অবৈধভাবে দোকান নির্মাণ করলে ভারপ্রাপ্ত পৌর মেয়র মাহবুবুর রহমান মাবু তা উচ্ছেদ করে দেয়। এরপরও থেমে নেই ভূমিদস্যুদের থাবা।

কক্সবাজারের সকল স্তরের হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন মহাশ্মশান সুরক্ষা ও উন্নয়নের জন্য পবিত্র দায়িত্ব দেন আমাদের। হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের দেয়া পবিত্র দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে শ্মশান ও রাস্তা দখলকারীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিই এবং শ্মশানের পবিত্রতা রক্ষার জন্য দায়িত্ব পালন করি। এতে আমাদের ব্যক্তিগত কোন স্বার্থ নেই। শ্মশানের বিরুদ্ধে কেউ অবস্থান নিলে তা আমরা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের মাধ্যমে প্রতিহত করি। আমরা ব্যক্তিগত ভাবে কারো প্রতিপক্ষ নয় এবং কারো স্বার্থের ক্ষতি করতেও চাই না। তবে কেউ শ্মশানের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলে তা সম্মিলিতভাবে প্রতিহত করা হবে।

বিবৃতিদাতা সাংবাদিক দীপক শর্মা দীপু কার্যকরী সভাপতি, দীপক দাশ সাধারণ সম্পাদক, সাংবাদিক চঞ্চল দাশগুপ্ত কার্যকরী সদস্য, কেন্দ্রীয় মহাশ্মশান পরিচালনা পরিষদ।

%d bloggers like this: