Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / চকরিয়ায় আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ চালকদের

চকরিয়ায় আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ চালকদের

Mukul 3-07-2016 news 1pic

নিজস্ব প্রতিনিধি; চকরিয়া :

কক্সবাজারের চকরিয়ায় আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের (রেজিঃ নং বি ৭২৬) নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ইদকে সামনে রেখে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের শহীদ আবদুল হামিদ বাস টার্মিনাল এলাকায় এই চাঁদা আদায় করছে বলে চালকরা জানিয়েছে। এই চাঁদা তুলছেন আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের অন্তর্ভূক্ত চকরিয়া-লামা-আলীকদম রোড কমিটির সমিতির সভাপতি রফিক আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক রফিক উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল শ্রমিক। কিন্তু চকরিয়া থেকে চলাচলরত আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের আরো কয়েকটি শাখা রয়েছে। কিন্তু তারা এবিষয়ে কোন কিছূ জানে না।

সরকারের পক্ষ থেকে সারাদেশে তিন চাকার যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়ার পর সড়কে চার চাকার জি-টু, পিয়াগো ও ফোর হুইলার গাড়ি আমদানি করা হয়। এসব গাড়ি চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়া-ঈদগাঁও লাইনে চলাচলরত রয়েছে।

এদিকে রমজানের ঈদকে টার্গেট করে আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নামে টোকেন দিয়ে চাঁদা আদায় করছে শ্রমিক নেতারা। ওই চার চাকার যান থেকে গত কয়েকদিন ধরে চাঁদা আদায় করছেন তারা। এতে চালক-শ্রমিকরা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। চাঁদা না দিলে চালকদের মারধরসহ নানাভাবে হয়রানি করছেন তারা। শ্রমিক নেতাদের মারধরে কয়েকজন জি-টু চালক আহত অবস্থায় চকরিয়া সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

জানা গেছে, সরকারের পক্ষ থেকে সারাদেশে তিন চাকার যান বন্ধ করে দেওয়ার পর সড়কে চার চাকার জি-টু, পিয়াগো ও ফোর হুইলার গাড়ি রাস্তায় নামে। সারা দেশের মত চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে এই য্না চলাচল রয়েছে। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে চকরিয়া পৌর শহীদ আবদুল হামিদ বাস টার্সিনাল এলাকায় জি-টু, পিয়াগো ও ফোর হুইলার গাড়ি থামিয়ে প্রতি গাড়ি থেকে ৩০ টাকা করে দৈনিক শ্রমিক কল্যাণ ও লেভী আদায় রশিদ দিয়ে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। যা নিয়ম নেই বলে দাবি করছেন ওই গাড়ির চালকরা। ফলে প্রতিদিন ওই গাড়ি থেকে চাঁদা আদায় করায় সাধারণ যাত্রী চরম ভোগান্তিতে পড়েছে।

জি-টু, পিয়াগো ও ফোর হুইলার গাড়ির মালিকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সড়কে গাড়ি চালাতে যত নিয়ম মেনে চলতে হয় তা পূরণ করে এসব গাড়ি মহাসড়কে নামানো হয়েছে। কিন্তু কয়েকদিন ধরে আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নাম ব্যবহার করে একদল শ্রমিক প্রতি গাড়ি থেকে জোর করে ৩০টাকা প্রতিদিন আদায় করছেন। এতে চাঁদা না দিলে চালকরা মারধরসহ ও নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছে। তারা দাবি করেন, যারা আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা আদায় করছেন লামা-আলীকদম-থানছি সড়কে আলাদা লাইনও রয়েছে।

শ্রমিক নেতাদের মারধরে আহত জি-টু চালক ইকবাল হোসেন সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, গত শুক্রবার সকালে চকরিয়া পৌর শহর থেকে ভাড়া নিয়ে খুটাখালী যাওয়ার পথে শহীদ আবদুল হামিদ বাস টার্মিনাল এলাকায় গেলে গাড়ি থামিয়ে ৩০টাকা চাঁদা দাবি করে। তিনি কিসের চাঁদা জানতে চাইলে তাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে মারধরে শুরু করে। পরে তাদের কাছ থেকে কোন রকম প্রাণে বেঁচে আসি। পিয়াগো চালক মহিউদ্দিন ও পেটান বলেন, জীবনে অনেক রকম চাঁদাবাজি দেখেছি কিন্তু এরকম মাস্তানি চাঁদাবাজি দেখিনি। আমরা এদের কাছ থেতে মুক্তি চায়। তাহলে সড়কে গাড়ি চালানো সম্ভব হবে না।

জানতে চাইলে আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের অন্তর্ভূক্ত চকরিয়া-লামা-আলীকদম রোড কমিটির সমিতির সভাপতি রফিক আহমদ বলেন, এই সড়কের ডুলাহাজারা পর্যন্ত আমাদের ইউনিয়নের অন্তর্ভূক্ত। তাই আমরা চাঁদা নিচ্ছি। এটা তো কোন অনিয়ম নয়।

আরাকান সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট শ্রমিকনেতা মো: কামাল আজাদেও কাছে জানতে চাইলে তিনি এই বিষয়ে অবগত নেই বলে জানায়। তবে তিনি খোঁজ নিয়ে তা পরে জানাবেন বলে জানিয়েছেন।

%d bloggers like this: