শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:২২ অপরাহ্ন

শিরোনাম
বিএনপির জন্য অপেক্ষা করবে নির্বাচন কমিশন লামায় গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে ধূম্রজাল লামায় বিদ্যুৎ যাচ্ছে অটোরিকশা-টমটমের পেটে লামায় ৬৯ লিটার চোলাই মদসহ ব্যবসায়ী আটক ১ ঈদগড়ের চালক শহিদুল হত্যাকান্ডে আটক আসামীদের জামিন না মঞ্জুর এবং পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন অসহায় পিতা শুভ জন্মাষ্টমী আজ সারা দেশে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে রামুতে আ’লীগের সমাবেশ অনুষ্ঠিত দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ঈদগাঁওতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ কক্সবাজার সৈকতে নিখোঁজ পর্যটকের মরদেহ উদ্ধার  বিশ্বের সবচেয়ে পাতলা ভাঁজযোগ্য ফোন দেখাল শাওমি ঘোষণার আগেই বাড়লো চিনির দাম

চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের অভিযানে ২৫ একর জমি উদ্ধার

চকরিয়ায় বরইতলীর বনভূমিতে অবৈধভাবে নির্মিত ৩৫টি বসতঘর উচ্ছেদ

মুকুল কান্তি দাশ; চকরিয়া :

চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের চুনতি রেঞ্জের আওতাধীন চকরিয়া উপজেলার বরইতলী বনবিটের বনভূমিতে অবৈধভাবে নির্মাণ করা কয়েকশত বসতির মধ্যে ৩৫টি বসতঘর উচ্ছেদ করা হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত এ উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বনকর্মকর্তা (ডিএফও) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম চৌধুরীর নির্দেশে পদুয়ার সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মতলুবুর রহমান, চুনতি রেঞ্জ কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, পদুয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা কাজী আলাউদ্দিন, হারবাং ও বরইতলীর বিট কর্মকর্তা মোস্তাফিজুল হক, সাতগড় বিট কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইউনুছ, বারবাকিয়া বিট কর্মকর্তা মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম, বরদোয়ারা বিট কর্মকর্তা মোহাম্মদ রইচ উদ্দিন, বড়হাতিয়া বিট কর্মকর্তা জোবায়ের হোসেন ছাড়াও অভিযানে ছিলেন চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলাম, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মাহবুবউল করিম, চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহিরুল ইসলাম খান।

অভিযোগ রয়েছে কতিপয় বনকর্মকর্তা-কর্মচারীকে ম্যানেজ করে দীর্ঘ বেশ কয়েক বছর ধরে চুনতি রেঞ্জের প্রত্যেক বনবিটের আওতায় বনভূমিতে কয়েক হাজার অবৈধ বসতি নির্মাণ করা হয়। পাশাপাশি পাহাড় কেটে মাটি ও বালি বিক্রয় নিয়মিত ঘটনা হয়ে উঠে। শনিবার বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নির্দেশনায় অভিযান শুরু হয়। অভিযানের প্রথম দিনে চার ঘন্টায় ৩৫টি বসতঘর উচ্ছেদ করা হয়। এসময় শাহজাহান নামক এক ব্যক্তির বাড়ি থেকে ব্যবহৃত তিনটি কার্তুজের খোসা উদ্ধার হয়।

এসিএফ মতলুবুর রহমান বলেন, অবৈধ বসতি উচ্ছেদের পর বেহাত হওয়া অন্তত ২৫ একর বনভূমি উদ্ধার হয়েছে।

বনভূমিতে অবৈধভাবে নির্মিত বসতি ও পাহাড় কাটা বন্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম চৌধুরী জানিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, যেসব বিট বর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল তাদের সংশ্লিষ্ট বিট থেকে সরিয়ে নতুন কর্মকর্তা দেয়া হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলেও বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

https://www.facebook.com/coxview

Design BY Hostitbd.Com