শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন

চাঁদাবাজি মামলার জের- শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইন আত্মগোপনে : আরো অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি

nur-hoshen-cheirmen-silkhali-pekua-2

নিজস্ব প্রতিনিধি; পেকুয়া :

কক্সবাজারের পেকুয়ায় চাঁদাদাবীতে সাবেক ছাত্রলীগ নেতার প্রজেক্টে তান্ডব লুটপাটের ঘটনায় শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষমতাধর বিএনপি নেতা মোঃ নুরুল হোছাইনের বিরুদ্ধে মামলা রুজুর জের ধরে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান আত্মগোপনে পাড়ি জমানোর খবর পাওয়া গেছে। ফলে, গত ১সপ্তাহ ধরে উপজেলার শিলখালী ইউনিয়ন পরিষদের যাবতীয় কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে।

এদিকে, উপজেলার ক্ষমতাধর শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা নুরুল হোছাইনের গা ঢাকার গুঞ্জনে তার শাসনামলের নানা অপকর্মের বিষয়ে বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে একাধিক লিখিত অভিযোগ দায়ের প্রস্তুতির গুঞ্জন দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, শিলখালী ইউপি’র চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি নুরুল হোছাইনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা রুজু করেছে পেকুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক ও মানবাধিকারকর্মী নাছির উদ্দিন বাদশা। শিলখালী ইউপি’র চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে তার কাছ থেকে দু’লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি, মারধর ও স্থাপনায় তান্ডব লুটপাটের অভিযোগে কক্সবাজারের চকরিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। বিজ্ঞ হাকিম উক্ত আবেদন আমলে নিয়ে নিয়মিত মামলা হিসেবে রুজু করতে ওসি পেকুয়া থানাকে নির্দেশ দেন। ২৭ নভেম্বর পেকুয়া থানায় সেটি নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড হয়েছে। যার নং-১৫/১৬। মামলায় শিলখালী ইউপি’র বিএনপি সমর্থীত চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইনকে প্রধান আসামি করা হয়েছে। মামলার অপর আসামিরা হলেন একই ইউপি’র সদস্য বিএনপি নেতা আবু তাহের, চেয়ারম্যানের ফুফাতো ভাই ছৈয়দ নুরুল হাকিম, হাজিরঘোনা এলাকার জামাল হোসেনের ছেলে যুবদল নেতা মুফিজুর রহমান, একই এলাকার মোজাফ্ফর আহমদের ছেলে খোরশেদ আলম বোরহান, একই এলাকার চেয়ারম্যান পাড়ালিয়া কায়সার উদ্দিন, পেটান মাতবরপাড়া এলাকার নুরুল আমিনের ছেলে মো.জাকরিয়া।

এছাড়া মামলায় আরো ১০-১২জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। পেকুয়া থানার অফিসার ইনর্চাজ জিয়া মো.মোস্তাফিজ ভুঁইয়া মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালে ২৯ এপ্রিল বন ও পরিবেশ মন্ত্রনালয়ের সহকারী সচিব আনোয়ার হোসেন স্বাক্ষরিত ২২০১.০০০০.০৬৭.০৩১.০০৬.২০১৩/৪৮স্মারক মূলে গত ০৫/০৫/১৪ইং বন অধিদপ্তর আগারগাঁও সামাজিক বনায়ন ও ব্যবস্থাপনা ইউনিট পত্র নং-২২.০১.০০০০.১৯(এ).টি/১৫৯(লট৪)২০১৪.২৯৮মূলে বনবিভাগের সহকারী প্রধান বন সংরক্ষক তরিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বিভাগীয় বন কর্মকর্তা চট্টগ্রাম দক্ষিন বন বিভাগ/ বন সংরক্ষক চট্টগ্রাম অঞ্চলকে নির্দেশনা তারিখ থেকে ১৫দিনের মধ্যে নাছির উদ্দিন বাদশাকে চুক্তিপত্র সম্পাদনের মাধ্যমে জায়গা বুঝিয়ে দিয়ে কর্তৃপক্ষকে অবহিতের কথা বলা হয়। উক্ত আদেশের পূর্ব থেকে পূর্ব দখলদারের সাথে সমন্বয় করে দীর্ঘদিন ধরে প্রস্তাবিত স্বত্বে দখল থাকায় তিনি ব্যক্তিগত অর্থায়নে সেখানে ঘেরাবেড়া, বনায়ন ও রক্ষনাবেক্ষন স্থাপনা গড়েন। ওই জায়গার পাশের বাংলাদেশ রেলওয়ের ষ্টেশন হওয়ার সম্ভাবনার কথা প্রকাশ প্রচার হলে ছাত্রলীগ নেতা নাছির বাদশার ভোগদখলীয় জায়গার উপর চেয়ারম্যান বাহিনীর লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। একপর্যায়ে চেয়ারম্যানের নিকটাত্মীয় ও পাড়ালিয়া ক্যাডাররা নাছির উদ্দিন বাদশার কাছে ২লক্ষ টাকা চাঁদাদাবী করে বিভিন্ন প্রকার হাকাবকায় লিপ্ত হয়ে প্রজেক্ট জবরদখলের পাঁয়তারায় মাতেন। পরে ১৯ নভেম্বর সকাল সাড়ে ৮টার দিকে নাছির উদ্দিন বাদশা ও অপরাপর উপকারভোগীরা তাদের প্রজেক্টে অবস্থানকালে বিএনপি নেতা চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইনের নেতৃত্বে অপরাপর আসামীগণ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ছাত্রলীগ নেতা নাছির উদ্দিন বাদশার কাছে নগদ দু’লক্ষ টাকা চাঁদাদাবী করেন। চাঁদাদিতে অস্বীকার করায় চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইন ওই ছাত্রলীগ নেতাকে হাতুড়ি পেটায় মারধর করে মাটিতে লুটিয়ে দেয়। অন্যান্য আসামীরা মারধরের পর প্রায় ৬০টির মতো পাকা পিলার, প্রজেক্টের ঘেরাবেড়া ও সৃজিত বনায়নে তান্ডব চালিয়ে প্রায় ২/৩লাখ টাকার ক্ষতিসাধন শেষে লুটপাট করে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে ও বিষয়টি থানাকে অবহিত করে।  ছাত্রলীগ নেতা নাছির উদ্দিন বাদশাহ জানিয়েছেন, সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী আলহাজ সাফিয়া খাতুনের ডিও লেটার পত্রের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম দক্ষিন বনবিভাগের পহরচাঁদা বনবিটের আওতায় হারবাং মৌজার রির্জাভ ভূমি ১৭নং সিটের ৫১ থেকে ৮৬ দাগে উপকারভোগি হিসেবে সংরক্ষিত বনাঞ্চালে তিনি বাগান সৃজন করেন। বাগান পরিচার্যে ছাত্রলীগ নেতা তার বরাদ্ধকৃত জায়গায় পিলার ও কাটাতারের বেড়া দিয়ে সিমানা নির্ধারন করেন। বর্তমানে গাছগুলি বিক্রি উপযুক্ত হয়েছে।

জানা গেছে, এঘটনার সুত্র ধরে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নাছির উদ্দিন বাদশা বাদি হয়ে আসামিদের নামোল্লেখ করে আদালতে গত ২২ নভেম্বর একটি পিটিশন দায়ের করেন। এ ব্যাপারে মামলার বাদি নাছির উদ্দিন বাদশা আরো জানায়, বিএনপি নেতা শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইন একজন অঘোষিত মাফিয়া ডন হিসাবে পরিচিত। তার নেতৃত্বে শিলখালীর পাহাড়ি এলাকায় গড়ে উঠেছে একাধিক দখল ও চাঁদাবাজ চক্রের সিন্ডিকেট এবং অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী বাহিনী। ইতিপূর্বেও শিলখালীর পাহাড়ি এলাকায় বনায়নের জায়গা দখল বেদখল নিয়ে একাধিকবার সশস্ত্র মহড়া গোলাগুলির ঘটনা সংঘঠিত হলে তা নিয়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সচিত্র সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশ প্রচার হয়। সেখানেও ওই ইউপি চেয়ারম্যানের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি উল্লেখ ছিল।

এছাড়া, ভোট কেন্দ্রে গোলযোগ, পুলিশের উপর হামলা, কালো টাকার প্রভাবে তিনি একাধিকযভর চেয়ারম্যানের ক্ষমতা ভাগিয়ে নেন বলে জনশ্রুতি প্রচার আছে। এছাড়া, শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যানের ভিলেজ পলিটিক্সের বেড়াজালে আটকে তিনি স্থানীয় ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের মধ্যে কোন্দল, দলাদলি ও গ্রুপিং রাজনীতির জিইয়ে রাখেন বলে ওই চেয়ারম্যানের নিজ গ্রামসহ পুরো উপজেলায় আওয়ামীলীগের তৃনমূল নেতাকর্মীদের মন্তব্যে তথ্য পাওয়া গেছে। এমনকি, পেকুয়ায় আওয়ামী বিদ্বেষী সমাজ ব্যবস্থার ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে ওই শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা নুরুল হোছাইন সদায় ব্যস্ত সময় কাটান বলে অভিযোগ রয়েছে। আলোচিত এই বিএনপি সমর্থীত চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইন তার শাসনামলে বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন, স্থানীয় প্রশাসনকে বিব্রত করে এলাকার নিবেদীতপ্রাণ আওয়ামীলীগ নেতাকর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের ফাঁসাতেও ইতিপূর্বে তার এলাকায় প্রকাশ্য চুরিকাঘাতে যুবক খানে আলম ও রাতের আঁধারে জবাই করে যুবক মানিক খুন, জারুলবনিয়া ষ্টেশন গণডাকাতি থেকে শুরু করে অনেক চাঞ্চল্যকর অপরাধমূলক কর্মকান্ড সংঘঠিত করিয়েছেন বলে সচেতন মহলের মন্তব্যে জানা গেছে। সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নাছির উদ্দিন বাদশা আরো বলেন, সরকার আমাদেরকে বনায়ন গড়ার জন্য মনোনীত করেছেন। বাগানে লাখ লাখ টাকা পুঁজি বিনিয়োগ করেছি। কঠোর পরিশ্রম করে বাগান গড়ে তুলেছি। প্রায় দু’লক্ষ টাকা খরচ করে ঘিরা বেড়া দিয়েছি। সুফল পাওয়ার সময় অভিযুক্ত চেয়ারম্যান বাগানের প্রতি কুদৃষ্টি দিয়েছেন। অথচ এই শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা নুরুল হোছাইন স্থানীয় সবুজপাড়া এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে সরকারের কয়েকশত একরের রিজার্ভ বনভূমি জবর দখল করে অবৈধভাবে ভোগদখলে রয়েছেন। সেখানে সরকারী অর্থায়নের যে প্রায় কোটি টাকা মূল্যের গর্জন, সেগুনসহ মূল্যবান প্রজাতির বনায়ন রয়েছে সময় সূযোগ বুঝে তা চড়াদামে বিক্রি ও পাঁচার করে সেই টাকায় সরকার ও আওয়ামীলীগ বিরোধী আন্দোলনে পৃষ্টপোষকতা দেয়া ছাড়াও নিজের বিভিন্ন জুট-ঝামেলা মোকাবেলা করে থাকেন।

এ প্রসঙ্গে, শিলখালী ইউপি’র চেয়ারম্যান নুরুল হোছাইনের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ছাত্রলীগ নাছির উদ্দিন বাদশা হারবাংয়ে বনবিভাগের কিছু জায়গা পেয়েছে বলে জেনেছি। তবে ওই জায়গা আরেকটি পক্ষ তাদের বলে দাবি করছে। যেখানে আমার কোন সম্পৃক্ততা নেই। সে মনে করছে আমাকে আসামি করলে মামলায় সুবিধা পাবে। সে সুত্রেই মামলটি করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেন।

এদিকে, আদালতে শিলখালী ইউপি চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা নুরুল হোছাইনের বিরুদ্ধে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নাছির উদ্দিন বাদশা বাদী হয়ে চাঁদাবাজি ও লুঠপাটের মামলা রুজু ঘটনার পরদিন থেকেই চেয়ারম্যান পরিষদে না আসায় ওই গ্রাম পরিষদের সকল প্রকার কার্যক্রমে স্থবিরতা নেমে এসেছে বলে পরিষদ সূত্র জানায়।

https://www.facebook.com/coxviewnews

Design BY Hostitbd.Com