Home / প্রচ্ছদ / চোরের দশদিন, পুলিশের একদিন- কক্সবাজার সদর খাদ্য গুদামের চাউলভর্তি ট্রাকসহ ৪জন আটক

চোরের দশদিন, পুলিশের একদিন- কক্সবাজার সদর খাদ্য গুদামের চাউলভর্তি ট্রাকসহ ৪জন আটক

Ajit Himu -23-12-2015 (news & 1pic) f1অজিত কুমার দাশ হিমু, কক্সভিউ:

কক্সবাজার সদর খাদ্য গুদামে রক্ষিত সরকারী চাল গোপনে পাচারকালে ১২০বস্তা চাল বোঝাই একটি ট্রাক আটক করেছে পুলিশ। ২৩ ডিসেম্বর সকাল ১১ টায় শহরের আলীর জাঁহাল থেকে চাল বোঝাই ট্রাকটি আটক করা হয়। এসময় অবৈধভাবে সরকারী চাউল পাচারের অভিযোগে স্থানীয় তাজরেজা ফ্লাওয়ার মিলস এর মালিক আব্দুস সোবহান, কর্মচারী সাগর, মেসার্স আমির হামজা রাইস এজেন্সির মালিক আমির হামজা ও তার ছেলে সরওয়ারকে গ্রেফতার করা হয়।

কক্সবাজার মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক খোরশেদ আলম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শহরের আলির জাঁহাল এলাকায় অভিযান চালিয়ে মেসার্স আমির হামজা রাইস এজেন্সির মালিকের ছেলে সরওয়ার, চাল পাচার সিন্ডিকেটের সদস্য সাগরসহ বেশ কয়েকজন বাঁধা প্রদান করায় এবং তারা সরকারী চাউল মজুদের পক্ষে কোন ধরণের সঠিক কাগজপত্র দেখাতে না পারায় ওই ১২০বস্তা চালভর্তি ট্রাক ও পাচারের সাথে জড়িত ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি আরও জানান, গ্রেফতারকৃতরা ওই চাল গুলো আনসার ভিডিপির রেশনের চাল বলে উল্লেখ করে পাচার করছিল। পরে আনসার ভিডিপি’র সদর উপজেলা কর্মকর্তা গাজী রফিক উদ্দিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ওই চাল তাদের নয় মর্মে উল্লেখ করেন। এইভাবে তারা বিভিন্ন সময় সরকারী গুদাম থেকে অবৈধভাবে চাল পাচার করে আসছিল বলেও অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। তিনি আরও জানান গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

অপর দিকে আনসার ভিডিপির সদর উপজেলা কর্মকর্তা গাজী রফিক উদ্দিন ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের জানান, আনসারের নাম ব্যবহার করে সদর খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষ চাউল গুলো পাচার করছিল। আনসারের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

তবে ঘটনাস্থলে সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক শাহজামাল উপস্থিত হয়ে বিভিন্ন কৌশলে চাউলগুলো রক্ষা করার চেষ্টা করেন। সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এসব আনসারের রেশনের চাউল। তারাই এই চাউল বিক্রি করেছে। কিন্তু পরক্ষণে আনসার কর্মকর্তা উপস্থিত হলে তিনি দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

%d bloggers like this: