Home / প্রচ্ছদ / জেলায় ৪১ কেন্দ্রে ১৯৭০৯ জন পরীক্ষার্থী এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু আজ

জেলায় ৪১ কেন্দ্রে ১৯৭০৯ জন পরীক্ষার্থী এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু আজ

Exam sscএম.বেদারুল আলম; কক্সভিউ :

আজ ১ ফেব্রুয়ারী থেকে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। দীর্ঘদিন পর পরীক্ষা পদ্ধতির পরিবর্তন এনে এ বছর প্রথমে নৈব্যক্তিক এবং পরে সৃজনশীল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এবার জেলায় ৪১ কেন্দ্রে ১৯ হাজার ৭শ ৯ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করছে। পরীক্ষা গ্রহনের জন্য ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন।

জেলা প্রশাসকের শিক্ষা ও কল্যাণ শাখা সূত্রে জানা যায়, জেলায় এবার ৪১ কেন্দ্রে ১৯৭০৯ জন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দিচ্ছে। এদের মধ্যে এসএসসিতে ২৩ কেন্দ্রে ১৩,৭৫৯ জন, দাখিলে ১২ কেন্দ্রে ৫২৩২ জন এবং কারিগরির ৬টি কেন্দ্রে ৭১৮ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে। এবার সদরে এসএসসিতে ৫টি কেন্দ্র রয়েছে। এর মধ্যে কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৬৫৫ জন, কক্সবাজার সরকারি বালিকা কেন্দ্রে ১১২০ জন, ঈদগাঁও আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৫২৬ জন, ঈদগাঁও জাহানারা বালিকা কেন্দ্রে ৪৪৪ জন এবং কক্সবাজার মডেল হাইস্কুল কেন্দ্রে ৫৩২ জন।

রামুতে ২টি কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৯০৪ জন, রামু খিজারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৪৬০ জন, রামু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৪৪৪ জন।

চকরিয়ার এসএসসি’র কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪২০৬ জন। এদের মধ্যে চকরিয়া সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১৯০৭ জন, সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১২২৬ জন, ইলিশিয়া জমিলা বেগম উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৪১০ জন, কোরক বিদ্যাপীঠ কেন্দ্রে ৬৬৩ জন।

কুতুবদিয়ায় সরকারি বালিকা কেন্দ্রে ৬০৬ জন এবং ধুরুং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩০০ জন। মহেশখালীর ৩টি কেন্দ্রের মধ্যে সরকারি বালিকা কেন্দ্রে ৭৯৭ জন, কালামারছড়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩৫৭ জন, মাতারবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩৭১ জন।

উখিয়ার ২টি কেন্দ্র উখিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৮০০ জন, উখিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৪৫০ জন।

টেকনাফের ৩টি কেন্দ্র পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২১০ জন, এজাহার বালিকা কেন্দ্রে ২৮১ জন, আলহাজ্ব আলী আছিয়া কেন্দ্রে ৪০৩ জন।

পেকুয়ায় পেকুয়া জিএমজি ইনস্টিটিউশন কেন্দ্রে ৫১৬ জন। পেকুয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২৮১ জন এসএসসি পরীক্ষার্থী রয়েছে। অপরদিকে দাখিলের ১২ কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৫২৩২ জন। এবং কারিগরীতে ৬ কেন্দ্রে ৭১৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করছে। এদিকে এবার পরীক্ষার শুরুতে নৈর্ব্যক্তিক এবং পরে সৃজনশীল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। বিজ্ঞান বিভাগের বিষয়ের ৩৫ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিকের জন্য ৩৫ মিনিট সময় এবং মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগের ৪০টি নৈর্ব্যক্তিকের জন্য ৪০ মিনিট সময় বরাদ্দ রয়েছে। ফলে প্রথম নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষার কারণে কোন পরীক্ষার্থী নির্দিষ্ট সময়ের পরে হলে প্রবেশ করলে অপূরণীয় ক্ষতি হওয়ার আশংকা রয়েছে। যথাসময়ে পরীক্ষার হলে প্রবেশের জোর দিয়েছেন শিক্ষকগণ। আগে পরীক্ষার্থীদের সৃজনশীল বা রচনামূলক অংশের উত্তর শুরুতে দিতে হত। এবার শুরুতে দিতে হবে এমসিকিউ অংশের উত্তর। এই দুই অংশের মধ্যে বিরতি থাকবে ১০ মিনিট।

%d bloggers like this: