শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
বিএনপির জন্য অপেক্ষা করবে নির্বাচন কমিশন বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি, ১৭ জেলে উদ্ধার সুদানে বন্যায় ৭৭ জনের মৃত্যু বিশ্বের প্রথম ২০০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা আনল মটোরোলা  লামায় গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে ধূম্রজাল লামায় বিদ্যুৎ যাচ্ছে অটোরিকশা-টমটমের পেটে লামায় ৬৯ লিটার চোলাই মদসহ ব্যবসায়ী আটক ১ ঈদগড়ের চালক শহিদুল হত্যাকান্ডে আটক আসামীদের জামিন না মঞ্জুর এবং পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন অসহায় পিতা শুভ জন্মাষ্টমী আজ সারা দেশে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে রামুতে আ’লীগের সমাবেশ অনুষ্ঠিত দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে ঈদগাঁওতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ

টেকনাফে ইয়াবা উদ্ধার অব্যাহত : এবার টেকনাফ ২ বিজিবি উদ্ধার করল ৭ লক্ষ ইয়াবা

Yaba
গিয়াস উদ্দিন ভুলু; টেকনাফ :
পাশ্ববর্তী দেশ মিয়ানমার থেকে প্রতিনিয়ত ইয়াবা পাচার অব্যাহত রয়েছে। প্রতিদিন কোটি কোটি টাকার বস্তাবন্দী ইয়াবা পাচার হয়ে আসছে বাংলাদেশে। এই ইয়াবা পাচার প্রতিরোধে সীমান্ত প্রহরী টেকনাফ ২ বিজিবি সদস্যরা প্রতিনিয়ত আটক করছে কোটি কোটি টাকার ইয়াবা। তবে এই সমস্ত বড় বড় ইয়াবার চালানের সাথে কোন পাচারকারীকে আটক করতে সক্ষম হচ্ছেনা বিজিবি। পাচারকারীরা তাদের নিত্য নতুন কৌশলে বার বার থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।

বিজিবি সূত্রে জানা যায়, টেকনাফ সীমান্তের বিভিন্ন উপকূলে ইয়াবা পাচার প্রতিরোধ করার জন্য তাদের বাহিনী দিন রাত কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় বিজিবি সদস্যরা লক্ষ লক্ষ ইয়াবা উদ্ধার করতে সক্ষম হচ্ছে। কারন ইয়াবা ব্যবসায়ীরা খুবেই সুচতুর তারা বিজিবি সদস্যদের অভিযানের উপস্থিতি আগেই টের পেয়ে যায়। ফলে ইয়াবা পাচারকারীদের ধরতে সক্ষম হচ্ছে না বিজিবি।

বিভিন্ন সূত্রে খবর নিয়ে জানা যায়, ইদানিং টেকনাফ নাফনদী সীমান্তের বিভিন্ন এলাকা থেকে বিজিবি সদস্যরা লক্ষ লক্ষ পরিত্যক্ত ইয়াবা উদ্ধার করে যাচ্ছে। কিন্তু এই সমস্ত বড় বড় ইয়াবার চালানের সাথে কোন পাচারকারী আটক না হওয়ায় সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভিন্ন প্রকার প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। কেউ বলছে বস্তা বস্তা ইয়াবা রেখে কিভাবে পাচারকারীরা পালিয়ে যায়? এই সমস্ত ইয়াবা পাচারের মূল হোতা কারা? কেন ইয়াবা গডফাদাররা বার বার থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। কেন তারা ধরা পড়ছেনা?

এদিকে ২০ নভেম্বর ভোর রাত ৪ টার দিকে টেকনাফ ২ বিজিবি সদস্যরা সাবরাং ইউনিয়নের নাফনদীর আলু গুলা প্রজেক্ট এরিয়া থেকে প্রায় ৭ লক্ষ মালিক ছাড়া ইয়াবা উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। যার আনুমানিক মূল্য ২১ কোটি টাকা।

টেকনাফ ২ বিজিবি অধিনায়ক লে.কর্ণেল আবুজার আল জাহিদ গতকাল ভোর রাতে মালিক বিহীন ইয়াবা উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আমাদের সদস্যরা টেকনাফ উপজেলার সীমান্ত এলাকা থেকে ইয়াবাসহ বিভিন্ন প্রকার মাদক প্রতিরোধ করতে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। এবং আমরা সেই প্রতিরোধের ধারাবাহিকতায় লক্ষ লক্ষ ইয়াবা আটক করতে সক্ষম হচ্ছি। তিনি আরো বলেন, পাচারকারীরা তাদের নিত্য নতুন কৌশলে থেকে যাচ্ছে আড়ালে, তাই  কিছু কিছু অভিযানে বিজিবি উপস্থিতি আগেই টের পেয়ে যায় এবং পাচারকারিরা কৌশলে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। তবে এই সমস্ত ইয়াবা পাচারের সাথে কারা জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে খুব শীঘ্রই আইনের আওয়াতাই নিয়ে আসা হবে। তার পাশাপাশি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সাধারণ মানুষ যদি পাচারকারীদের ধরতে সহযোগীতা করলে আমাদের অভিযানের আরো সফলতা ফিরে আসবে।

https://www.facebook.com/coxview

Design BY Hostitbd.Com