Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / ভ্রমণ ও পর্যটন / ট্যুরিস্ট পুলিশের ৮ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুরু

ট্যুরিস্ট পুলিশের ৮ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুরু

সংগৃহীত ছবি

নিজস্ব প্রতিনিধি :
ট্যুরিস্ট পুলিশের ৮ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে আজ। এ উপলক্ষ্যে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বিকেল ৩ টার দিকে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আগামী ১১ নভেম্বর সমাপণী অনুষ্ঠান।

সোমবার (৮ নভেম্বর) বিকালে ট্যুরিস্ট পুলিশের অষ্টম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে পর্যটন নগরী কক্সবাজারে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের দক্ষতায় এখন রাতের সমুদ্র সৈকতও নিরাপদ বলে মন্তব্য করেছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, ট্যুরিস্ট পুলিশের দক্ষতায় এখন রাতের সৈকতও নিরাপদ। আগে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে রাতে তেমন একটা মানুষ নামতো না। কিন্তু ট্যুরিস্ট পুলিশের দক্ষতায় এখন সেটাও সম্ভব হয়েছে। রাতেও প্রচুর দেশি-বিদেশি পর্যটক সৈকতে নামেন।

দেশী-বিদেশি পর্যটকদের বিশ্বমানের পর্যটন সেবা ও নিরাপত্তা প্রদানের মাধ্যমে দেশের পর্যটনশিল্প বিকাশের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ২০১৩ সালে বাংলাদেশ পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ট্যুরিস্ট পুলিশ। সেই থেকে পর্যটকদের নিরাপত্তায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে পুলিশের বিশেষ এই ইউনিট। পর্যটন নিরাপত্তা ও সেবায় আট বছর পূর্তি উপলক্ষে ৮ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করে ট‍্যুরিস্ট পুলিশ।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতসহ দেশের বিভিন্ন পর্যটন স্পট গুলোতে বেড়াতে যাওয়া দেশী বিদেশী পর্যটকদের কোন সমস্যা হলে সেখানে ছুটে যান ট্যুরিস্ট পুলিশ। কক্সবাজার জেলার হোটেল মোটেল জোনের পর্যটকদের নিরাপত্তার দায়িত্ব পুরো ট্যুরিস্ট পুলিশের দেয়া হচ্ছে। মোবাইল ফোন ছিনতাই, শিশু সন্তান হারিয়ে যাওয়া, বিদেশী পর্যটকরা কোন বিপদে পড়লে তাৎক্ষণিক ভাবে সহায়তার হাত বাড়ান ট্যুরিস্ট পুলিশ। আর বিভিন্ন পর্যটন স্পট গুলোতে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ট্যুরিস্ট পুলিশ পালাক্রমে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন।

এদিকে প্রথমবারের মত ব্যাপক আকারে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনের মাধ্যমে এর পরিধি আরও বাড়ানো হবে। বাড়বে কার্যক্রম ও বাড়বে জনবল। এমনটাই আশা করছেন ট্যুরিস্ট পুলিশের বিভিন্ন কর্মকর্তারা।

এ সময় জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, ট্যুরিস্ট পুলিশের ডিআইজি মোর্শেদুল আনোয়ার, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন, কক্সবাজার সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য কানিজ ফাতেমা মোস্তাক, জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ, ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের পুলিশ সুপার মো. জিল্লুর রহমানসহ শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

%d bloggers like this: