Home / প্রচ্ছদ / ধাওনখালীর রক্ষাবাঁধে পুনরায় ভাংগন ৩’শ পরিবার হুমকিতে : ঠিকাদারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

ধাওনখালীর রক্ষাবাঁধে পুনরায় ভাংগন ৩’শ পরিবার হুমকিতে : ঠিকাদারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

Aniyomএম.বেদারুল আলম :

পর পর ২ দফা বন্যার ক্ষতি সাময়িক কাটিয়ে উঠলেও পুনরায় তলিয়ে গেছে সদরের পি.এম.খালীর ধাওনখালী। ৩১ আগস্ট পানির স্রোতে আবারো তলিয়ে গেছে ধাওনখালী ভারুয়াখালী নদীর রক্ষাবাঁধ। পানি প্রবেশ করে ৩’শ বাড়ি, বিস্তীর্ণ ফসলের জমি, মত্স্য প্রজেক্ট তলিয়ে যাওয়ার কারণে নতুন করে সংকট দেখা দিয়েছে। লবণ পানি প্রবেশের কারণে ফসলের উত্পাদন প্রায়ই ছেড়ে দিয়েছে কৃষকরা। পানি উন্নয়ন বোর্ডের তাত্ক্ষণিক বরাদ্ধ যথাযতভাবে ব্যবহার না করায় পুনরায় রক্ষাবাঁধের ভাঙ্গন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

পি.এম.খালীর ধাওনখালী খলিলীয়া ছিদ্দিকীয়া মাদ্রাসার পরিচালক মৌলানা মোহাম্মদ মুসলেম জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৬৬/১নং পোল্ডারের ভারুয়াখালী ধাওনখালী নদীর বেশিরভাগ রক্ষাবাঁধ চলতি বছরের বন্যায় বিশেষ করে কোমেনের প্রভাবে বিলীন হয়ে পড়ে। তখন জরুরী সহায়তা হিসাবে পানি উন্নয়ন বোর্ড সাময়িক ক্ষতি কাটিয়ে তুলতে অস্থায়ী বাঁধ নির্মাণে ৯ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়।

হেলাল উদ্দিন নামের ঠিকাদার উক্ত সংস্কার কাজে স্থানীয় লোকজনকে দায়িত্ব প্রদান করলেও ঠিকাদারের অবহেলায় পুনরায় বাঁধটি তলিয়ে যায়। মৌলানা মোসলেমের দাবী ঠিকাদার ও দায়িত্বপ্রাপ্তদের অবহেলা ও দুর্নীতির কারণে রক্ষাবাঁধটি পুনরায় তলিয়ে গেছে। ভারুয়াখালী ঘাটের পাশের ভাংগনটি দিয়ে ৩১ আগস্ট লবণাক্ত পানি প্রবেশ করে ধাওনখালী তোতকখালী, বাঘগুজারা মুহসিনিয়া পাড়া, তাহের মোহাম্মদের ঘোনার বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ তলিয়ে গেছে।

তলিয়ে গেছে ধাওনখালীর ২ হাজার একর চিংড়ি ঘের। কবরস্থান, মাদ্রাসা, মসজিদে পানি প্রবেশ করায় দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। ঠিকাদারের অনিয়মের কারণে সাময়িকভাবে বরাদ্দ পাওয়া অর্থ “নয় বছর” হওয়ায় কাজের স্থায়িত্ব হয়নি বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। ধাওনখালীর ৩’শতাধিক পরিবারকে বাঁচাতে পুনরায় বাঁধ নির্মাণের দাবী জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্তরা।

Leave a Reply

%d bloggers like this: