Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / অপরাধ, আইন-আদালত / পেকুয়ায় দু’পক্ষে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া : গুলি বর্ষণ : শিশুসহ গুলিবিদ্ধ আহত ৩

পেকুয়ায় দু’পক্ষে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া : গুলি বর্ষণ : শিশুসহ গুলিবিদ্ধ আহত ৩

Hamla - Shagir 23-2-16এস.এম.ছগির আহমদ আজগরী; পেকুয়া :
কক্সবাজারের পেকুয়ায় দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও গুলি বর্ষণ ঘটনায় দেড় বছরের শিশুসহ ৩জন আহতের খবর পাওয়া গেছে। আহতরা হলেন, মাহমুদুল হকের পুত্র মোঃ আইয়ুব আলী (৩৮), তার দেড় বছরের শিশু মোঃ আবির হোসেন ও মোঃ ইউনুচের পুত্র ভুট্টো (১৭)। ঘটনাটি ঘটেছে, ২৪ফেব্রুয়ারী বুধবার আনুমানিক দুপুর দেড়টায় উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের টেকঘোনাপাড়া এলাকায়।
প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের টেকঘোনা পাড়া এলাকায় কাদের বৈদ্যর পুত্র ইলিয়াছ নামের এক ব্যক্তি তার স্ত্রীকে রাগের মাথায় তালাক দেয়। দাম্পত্য বিরোধের জের ধরে তালাকের এ ঘটনা নিষ্পত্তি নিয়ে দু’সমাজের লোকজন সামাজিক বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়ে গ্রামের এক স্থানীয় মৌলভীর দ্বারস্থ্য হয়। আপোষকালে একপক্ষের বিচারককে অবহিত না করার জের অজুহাত তুলে দুই পাড়ার লোকজন উত্তোজিত হয়ে মুখোমুখি অবস্থান নেয় বুধবার। এক পর্যায়ে দু’সমাজের লোকজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি সংঘটিত হলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। যার জের ধরে ওইদিন রাতেই দু’পক্ষের মহড়া ফাঁকা গুলির বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সর্বশেষ ২৪ফেব্রুয়ারী বুধবার দুপুরের দিকে দু’সমাজের লোকজনের মাঝে দেখা দেয় অতর্কিত উত্তেজনা। এসময় মাঝিরপাড়া সমাজের লোকজনের নেতৃত্বে ১০/১৫জনের একদল অস্ত্রধারী টেকঘোনা পাড়া এলাকায় মহড়া দিয়ে আতংক ছড়ালে প্রতিপক্ষের লোকজনও সংঘবদ্ধ হয় তাদের প্রতিরোধে। টেকঘোনা পাড়া এলাকার সমাজের লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে মহড়া দেওয়া মাঝির পাড়া সমাজের লোকজনদের ধাওয়া দেওয়ার চেষ্টা চালালে তারা এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই দেড় বছরের শিশু সহ ৩জন গুলিবিদ্ধে আহত হয়।
আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মুজিবুর রহমানের প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করান। খবর পেয়ে পেকুয়া থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন ও ঘটনার বিস্তারিত আলামত তথ্য সংগ্রহে নেন। পেকুয়া থানার ওসি জিয়া মোঃ মোস্তাফিজ ভুঁইয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান, এঘটনার তদন্ত চলছে। লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেবে পুলিশ। এদিকে, স্থানীয় দু’পক্ষের লোকজন ও সচেতন এলাকাবাসী সাংবাদিকদের মাধ্যমে বিরোধীয় দু’পক্ষের মধ্যে চাঁপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা অব্যাহত থাকায় ফের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা প্রকাশ করে ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার ও ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারের জোরালো দাবী জানান।

%d bloggers like this: