Home / প্রচ্ছদ / ফলোআপ… চকরিয়া পৌরসভায় প্রধান সহকারীকে মারধর ও লুটের অভিযোগে প্যানেল মেয়রসহ ১৪জনকে আসামী করে মামলা

ফলোআপ… চকরিয়া পৌরসভায় প্রধান সহকারীকে মারধর ও লুটের অভিযোগে প্যানেল মেয়রসহ ১৪জনকে আসামী করে মামলা

Faloupমুকুল কান্তি দাশ, চকরিয়া:
সরকারী কর্মচারীকে কর্তব্যকাজে বাঁধা, পিটিয়ে গুরুতর জখম ও মোবাইল সেটের মূল্যসহ নগদ ৯২ হাজার ৫শ টাকা লুটের অভিযোগে চকরিয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়রসহ ৬ জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত আরো ৭-৮জনসহ ১৪জনকে আসামী করে চকরিয়া থানায় মামলা হয়েছে। পৌরসভার প্রধান সহকারী এসএম মোস্তাক আহমদের স্ত্রী সেলিনা বেগম বাদী হয়ে শুক্রবার দিবাগত রাতে মামলাটি দায়ের করেন।
মামলায় আসামী করা হয়েছে পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও মাষ্টার পাড়ার মৃত নুরুল হক প্রকাশ হাছুর ছেলে শহীদুল ইসলাম ফোরকান, কাজীর পাড়ার বজল আহমদ প্রকাশ কালা বজলের ছেলে নাজেম উদ্দিন, মাষ্টার পাড়ার বেলাল উদ্দিন, ফুলতলা বাটাখালীর আবদুস সোবাহানের ছেলে মনছুর আলম, একই এলাকার আবদুল গণির ছেলে রানা হামিদ, মাস্টার পাড়ার ফেরদৌস আহমদের ছেলে মহিউদ্দিন ছাড়াও অজ্ঞাত আরো ৭-৮জন।
বাদী সেলিনা বেগম এজাহারে দাবী করেছেন, ২৬ আগস্ট তার স্বামী পৌরসভায় কাজ করার সময় অভিযুক্তরা জন্ম নিবন্ধন, ভূমিহীন সনদ ও প্রত্যয়নপত্র দিতে চাপ দিলে কাজের চাপে তড়িগড়ি দিতে না পারায় মোস্তাক আহমদকে হাতুড়ি ও ছোরা দিয়ে জখম করে এবং নগদ ৮০হাজার ৫০ টাকা ও ১২হাজার ৫শত টাকা মূল্যের মোবাইল সেট লুট করে।
এদিকে ঘটনা ও মামলার ব্যাপারে মুঠোফোনে জানতে চাইলে প্যানেল মেয়র ফোরকান বলেন, তিলকে তাল বানিয়ে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার দিন হালনাগাদ ইচ্ছুক নারী পুরুষরা প্রয়োজনীয় কাগজ নিতে পৌরসভা কার্যালয়ে ভীড় করেন। এসময় অতিরিক্ত টাকা ছাড়াও মহিলাদের অহেতুক বসিয়ে রেখে হয়রানী করায় ভুক্তভোগীদের সাথে মোস্তাকের বাগবিতন্ডা ও হাতাহাতি হয়।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আর চিকিত্সা বালাম বই দেখলে এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য নিলে আসল ঘটনা উদঘাটিত হবে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: