Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / রূপ লাবণ্য / সাজগোজ / বগলের দুর্গন্ধ দূর করার সহজ উপায়

বগলের দুর্গন্ধ দূর করার সহজ উপায়

https://i0.wp.com/coxview.com/wp-content/uploads/2021/11/Life-style-Armpit-odor-.jpg?resize=540%2C310

অনলাইন ডেস্ক :

প্রত্যেকের শরীর থেকে দুর্গন্ধ বের হয়। কারো শরীর থেকে কম, কারো শরীর থেকে বেশি। গরমের কারণে ঘেমে শরীরে দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়। গরম আবহাওয়া ও কর্মব্যস্ত থাকার ফলে ঘেমে গিয়ে আন্ডার আর্ম থেকে শরীরে ব্যাকটেরিয়ার বংশবৃদ্ধির কারণে ঘামে দুর্গন্ধ দেখা দেয়। প্রায়শই দুর্গন্ধযুক্ত বগলের (under arm) জন্য লজ্জাজনক পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। যা আমাদের নিজেদের ও আশেপাশের মানুষের জন্য বেশ বড় একটা সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। এই সমস্যা আমাদের রোজকার জীবনেও খুব প্রভাব ফেলে।

এছাড়া বগলে দুর্গন্ধ দূর করতে আরো কিছু সহজ উপায় কাজে লাগাতে পারি। যেমন:

লেবু : আমাদের বগলে হওয়া দাগকে লেবু খুব সহজেই দূর করতে পারে। বলা হয় যে বগলের গন্ধ দূর করার জন্য লেবু সবচেয়ে বেশি কার্যকরী। আমরা জানি লেবুর রসে আছি সাইট্রিক এসিড। সাইট্রিক এসিড ময়লা দূর করতে বিশেষভাবে কার্যকরী। বগলের নিচে ব্যাকটেরিয়াকে দূরিভূত করতে লেবুর একটা টুকরো কেটে বগলে ঘষতে হবে। বগলের দাগ দূর করার সহজ উপায় নিয়মিত ২থেকে ৩বার ম্যাসাজ করুন। বগলের নিচে হয়ে যাবে সতেজ আর দুর্গন্ধমুক্ত।

বেকিং সোডা : আরেকটি খুবই কার্যকরী পদ্ধতি হলো বেকিং সোডা। বেকিং সোডা সাধারণত খাবার প্রস্তুতে বেশি ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও আন্ডার আর্মের ঘামে যে ক্ষতিকর ব্যকটেরিয়া থাকে, তা বেকিং সোডা ব্যবহার করে প্রতিরোধ করা যায়। আবার অনেক সময় ত্বকের যত্নেও ব্যবহার করা হয়। গোসলের পরে অথবা সাবান দিয়ে ভালোমতো বগল পরিষ্কার করে নিয়ে একটি তোয়াল দিয়ে মুছে ফেলুন। বেকিং সোডার সঙ্গে একটু পানি মিশিয়ে তার একটি পেস্ট বানাতে হবে। সেই পেস্টটা বগলে লাগালে খুব তাড়াতাড়ি আর সহজেই বগলের দাগকে দূর করা যাবে।

ভিনেগার : আমাদের বগলের দুর্গন্ধ দূর করার এক মহৌষধ হলো ভিনেগার। ভিনেগার ডিওড্রেন্টের মতনও কাজ করে। গোসলের পর কিছুটা তুলো ভিনেগারে ভিজিয়ে তা আমাদের বগলের তলায় রাখতে হবে। কিছু মিনিট রাখার পর পরই বগলের গন্ধ দূর হয়ে যাবে। এটি ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে আন্ডার আর্মকে দুর্গন্ধমুক্ত রাখে।

আয়ুর্বেদিক পদ্ধতি : আয়ুর্বেদে একটি খুব সহজ পদ্ধতি উল্লেখ করা আছে যার দ্বারা আমরা বগলের দাগ দূর করতে পারি। শশার রস এবং লেবুর রসের মিশ্রণের মধ্যে এক চিমটি হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে সেইটা যদি বগলে লাগানো যায় তাহলে আমরা খুব তাড়াতাড়ি এই সমস্যার সমাধান পেতে পারি।

https://i0.wp.com/coxview.com/wp-content/uploads/2021/11/Life-style-Rose-water.jpg?resize=540%2C343

গোলাপজল : গোসলের পানির সঙ্গে পরিমাণমতো গোলাপজল মিশিয়ে নিয়ে গোসল করুন। এই উপায়টি দীর্ঘক্ষণ দেহকে ঘামের দুর্গন্ধ থেকে দূরে রাখে। এছাড়া তুলোর বল গোলাপ জলে ভিজিয়ে তা বগলে লাগিয়ে রাখুন। আন্ডারআর্মের ত্বককে মসৃণ ও কোমল রাখতে, বডি-স্প্রে ব্যবহারের পরিবর্তে গোলাপ জল ব্যবহার করুন।

মধু: একটি পাত্রে সামান্য উষ্ণ গরম পানি নিয়ে তাতে সামান্য পরিমাণ মধু মিশিয়ে রেখে দিন। গোসলের শেষে মধু মিশ্রিত পানি গায়ে ঢেলে নিন। এই মিশ্রণটি ঘামের দুর্গন্ধ দূর করতে সাহায্য করবে।

তুলসি পাতা : তুলসি পাতা দিয়ে বানানো চা প্রাকৃতিকভাবে অতিরিক্ত ঘাম হওয়া থেকে রক্ষা করে। প্রতিদিন এই চা পান করলে ঘাম কম হবে এবং ঘামে দুর্গন্ধ হবে না। তবে তুলসি পাতার চা দিয়ে বগল পরিষ্কার করলেও ভালো উপকার পাওয়া যায়। প্রথমে অল্প পরিমাণ তুলোর বল ঠাণ্ডা তুলসি পাতার চায়ে ভিজিয়ে নিয়ে বগলে হালকা ঘষে লাগান। এক পরতা চা লাগানোর পর না শুকানো পর্যন্ত কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। এরপর আবার একই স্থানে চায়ে ভেজানো তুলো হালকাভাবে ঘষে লাগান। শেষে শুকিয়ে আসলে পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

https://i0.wp.com/coxview.com/wp-content/uploads/2021/11/Life-style-Under-Arms-Hair-Removal.jpg?resize=540%2C311

নিয়মিত লোম পরিস্কার : শরীরের যেসব স্থানে লোম বেশি সেখানে অ্যাপোক্রাইন গ্রন্থিও বেশি, যেমন- বগল ও জননাঙ্গ। লোমগুলো ঘাম ধরে রাখে ও ব্যাকটেরিয়া বসবাসের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে। তাই নিয়মিত লোম কেটে ফেললে শারীরিক দুর্গন্ধ নিয়ন্ত্রণে থাকবে। এসব উপায় অনুসরণের পরও শরীর থেকে বেশি করে ঘামের দুর্গন্ধ বের হলে চিকিৎসককে জানাতে ভুলবেন না।

সবসময় ত্বক পরিষ্কার রাখলে এবং হাওয়া চলাচল করতে পারে এমন জামা পড়লে ঘামের দুর্গন্ধ হয় না। এছাড়াও সুতি কাপড়ের জামা পরার চেষ্টা করুন। কারন অন্য কাপড়ের চেয়ে সুতি কাপড় খুব দ্রুত ঘাম শুষে নেয়, যার ফলে দুর্গন্ধ কম হয়। কর্মব্যস্ততার মাঝেও সময় বের করে নিজের যত্ন নিন এবং বগলের দুর্গন্ধ দূর করে লজ্জাজনক পরিস্থিতি এড়িয়ে সতেজ থাকুন প্রতিদিন।

%d bloggers like this: