Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / বাণিজ্য মেলায় লটারী নিয়ে প্রতারণা : টিকেটের বেশির ভাগ অংশ লটারির বাক্সে ফেলা হয়না

বাণিজ্য মেলায় লটারী নিয়ে প্রতারণা : টিকেটের বেশির ভাগ অংশ লটারির বাক্সে ফেলা হয়না

Lotaryদীপক শর্মা দীপু; কক্সভিউ :

মহিলারা ঘরের চাল বিক্রি করে বাণিজ্যমেলার লটারির টিকেট কিনে। শিশুরা স্কুলের টিফিনের টাকা দিয়ে লটারির টিকেট নেয়। অনেক ছেলেরা প্রাইভেটে শিক্ষকদের বেতন না দিয়ে সেই বেতনের টাকা দিয়ে টিকেট ক্রয় করে। দিন মজুররা স্ত্রী সন্তানদের মুখে ভাত না দিয়ে টিকেট কিনে। অনেক ছেলে ঘরের টাকা ও মূল্যবান সামগ্রী চুরি করে টিকেট কেনার জন্য। ছিনতাইকারীরা মানুষের সর্বশান্ত করে ছিনিয়ে নিচ্ছে সবকিছু। আর ছিনতাইকৃত সেই টাকা দিয়ে টিকেট কিনে ছিনতাইকারীরা। এভাবে যে যার মতো করে টাকা সংগ্রহ করে তা তুলে দিচ্ছে জুয়া খেলা ব্যবসায়ীদের হাতে। প্রতিদিন গড়ে জেলার প্রায় ৫০ হাজার মানুষ ২টি করে ১ লাখ টিকেট ক্রয় করে ২০ লাখ টাকা জমা দিচ্ছে জুয়া খেলায়। আর পুরস্কার দেয় ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা। বাকি ১৬ লাখ টাকা জুয়া খেলা ব্যবসায়ীদের পকেটে ঢুকে। তবে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগের কতিপয় কয়েকজন, চিহ্নিত বেশ কিছু সাংবাদিক ও প্রভাবশালী কিছু নেতা কর্মীরা সুযোগ সুবিধা পায় বলে জুয়া খেলার এমন অন্যায়ের বিরুদ্ধে কোন প্রতিবাদ, নেই কোন এ্যাকশন।

জুয়া খেলায় মানুষের টাকা গচ্ছা যাচ্ছে। সবকিছু আর সংশ্লিষ্ট সবাইকে ম্যানেক করে খুব ভালোই চলছে বাণিজ্যমেলার জমজমাট জুয়াখেলা। এর মধ্যে ভয়াবহ অভিযোগ উঠেছে লটারির সব কূপন বাক্সে ফেলা হয়না। বিশেষ করে রিক্সা নিয়ে পাড়া, মহল্লায় রাস্তায় যে টিকেট বিক্রি করা হয় তা লটারি উত্তোলনের বাক্সে ফেলা হয়না। এমন অভিযোগ করেছেন ঘোনারপাড়ার হারাধন, প্রবীর, প্রদীপ, শামসু, জসিম, হেলাল, পিএমখালীর ছৈয়দ নূর, বাদশা, মমতাজ, খুরুশকুলের এখলাছ, পুনবর্ধন, সিরাজ, নুনিয়াছরার হেলেনা, আব্বাস। এছাড়া সুক্ষ্ম কৌশলে লটারির কূপন তোলা হয়। আর যারা লটারিতে পুরস্কার জিতে তাদের থেকে ২০ শতাংশ নিয়ে ফেলে জুয়াখেলা কর্তৃপক্ষ। অর্থাৎ ১ লাখ পেলে ২০ হাজার টাকা নিয়ে নেবে কর্তৃপক্ষ। এমন শর্তে রাজি থাকলে পুরস্কার পাওয়া যাবে। লটারি বিক্রি করা হয় ১ লাখ আর লটারির বাক্সে ফেলবে ২০ হাজার। বাকি ৮০ হাজার লটারির ভাগ্য পুড়ে ফেলা হয়। সব অভিযোগ অস্বীকার করে লটারি পরিচালনার অন্যতম কর্মকর্তা গিয়াস বলেন, যা অভিযোগ হয়েছে তা তাহা মিথ্যা, বানোয়াট। এবার সবচেয়ে বেশি স্বচ্ছ লটারি হচ্ছে।

সরেজমিনে লটারির কার্যক্রম দেখলে এর সত্যতা মেলবে।

%d bloggers like this: