Home / প্রচ্ছদ / মধ্যপ্রাচ্যের প্রথম ভূ-তাপীয় বিদ্যুত্ কেন্দ্র তৈরি করছে ইরান

মধ্যপ্রাচ্যের প্রথম ভূ-তাপীয় বিদ্যুত্ কেন্দ্র তৈরি করছে ইরান

Inanইরান মধ্যপ্রাচ্যের প্রথম ভূ-তাপীয় বিদ্যুত্ কেন্দ্র তৈরি করছে। এই ভূ-তাপীয় বিদ্যুত্ কেন্দ্র বা জিওথার্মাল পাওয়ার প্লান্ট আরদেবিল প্রদেশের মেসকিনশাহারের নির্মাণ করা হচ্ছে। কেন্দ্রটি একটি নিষ্ক্রিয় আগ্নেয়গিরির পাদদেশে নির্মিত হচ্ছে।

সাগরপৃষ্ঠ থেকে তিন হাজার মিটার উচ্চতায় সাবালান পর্বতমালায় এ স্থাপনা নির্মাণের কাজ চলছে। খনিজ পানি এবং উষ্ণ প্রস্রবণের  জন্য খ্যাতিমান এ অঞ্চলে প্রতিবছর হাজার হাজার পর্যটক যান।

আগামী দু’বছরের মধ্যে এই পরীক্ষামূলক কেন্দ্রটির নির্মাণ কাজ শেষ হবে। ভূ-তাপীয় শক্তির মাধ্যমে এ বিদ্যুত্ উত্পাদন হবে এবং এ কেন্দ্র থেকে ৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুত্ উত্পাদন করা যাবে। আর  এর মধ্য দিয়ে ভূ-গর্ভের তাপশক্তি ব্যবহার করে বিদ্যুত্ কেন্দ্র নির্মাণের সক্ষমতা অর্জন করবে ইরান। বিশ্বে বর্তমানে এ জাতীয় সক্ষমতা কেবল মাত্র ২৪টি দেশের আছে।

এ বিদ্যুত্ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য মেসকিনশাহারের ১১টি কুপ খনন করেছে ইরান। ইরানের জ্বালানিমন্ত্রী হামিদ চিতচিয়ান জানিয়েছেন, ১১টির মধ্যে ৭টি ভূগর্ভস্থ উষ্ণ আধারে পৌঁছাতে পেরেছে। ভূ-গর্ভের উষ্ণ পানি কেবল বিদ্যুত্ উত্পাদনেই লাগানো হবে না বরং আঞ্চলিক ঘরবাড়ি গরমের সময় শীতল এবং শীতের সময় গরম রাখার কাছে এ শক্তি লাগানো হবে।

নবায়নযোগ্য জ্বালানি হিসেবে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য হিসেবে ভূ-তাপীয় শক্তিকে মনে করা হয়। ভূগর্ভের উষ্ণ পানির আধার ব্যবহার করে বিদ্যুত্ তৈরির এ পদ্ধতি পানিবিদ্যুত্ বা তাপীয় বিদ্যুত্ উত্পাদনের চেয়ে অধিকতর নির্ভরযোগ্য এবং পরিবেশ বান্ধব হিসেবে ধরা হয়। জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর নির্ভরতা কমানোর উদ্যোগের অংশ হিসেবে ইরান এ জাতীয় পরিবেশ বান্ধব প্রকল্প গ্রহণ করছে।
– শীর্ষ নিউজ,ডেস্ক।

Leave a Reply

%d bloggers like this: