Home / প্রচ্ছদ / যে কোন সময়ে প্রাণহানির আশংকা- কুতুবদিয়ায় চরম ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অফিসের কার্যক্রম চলছে

যে কোন সময়ে প্রাণহানির আশংকা- কুতুবদিয়ায় চরম ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অফিসের কার্যক্রম চলছে

Janosasto office - Rasel -03-01-16 (news & 1pic) f1এম রাসেল খাঁন জয়; কুতুবদিয়া :
কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের অতি গুরুত্বপূর্ণ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ব্যবহারিত (অফিস) দীর্ঘ প্রায় ৫ যুগ আগে নির্মিত ভবনটিতে চরম ঝুকি নিয়ে অফিস কার্যক্রম চালাচ্ছে ঐ অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। এতে যে কোন সময় প্রাণহানির আশংকা প্রকাশ করছেন ঐ অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।
রবিবার সকালে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলীর অফিসে সরজমিনে পরিদর্শনে গেলে দেখাযায় ভবনটির বেহাল দশার দৃশ্য। উপরের ছাদ ভেঙ্গে পড়ার সাথে সাথে পাশের দেওয়াল ও মেঝের ফাটলের দৃশ্য। মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা নিয়মিত অফিস কার্যক্রম চালাতে দেখা গেছে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিস সুত্রে প্রকাশ, বাংলাদেশের স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে ১৯৭৭ সালে ১ তলা বিশিষ্ট এ ভবনটি নির্মান করা হয়। তখন থেকে ভবনটিতে দাপ্তরিক কার্যক্রম চলে আসছে। প্রায় অর্ধশত বছরের ভবনটিতে বড় ধরণের কোন সংস্কার বা মেরামত না হওয়াতে বর্তমানে ভবনটি মারাত্মক ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় পরিণত হয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মচারী জানায়, বর্তমানে ভবনটি পরিত্যাক্ত হয়ে পড়েছে। প্রতিদিন অফিস কার্যক্রম পরিচালনার সময় ছাদের এবং দেওয়াল থেকে পাথরের টুকরা গায়ে পড়ে প্রায় সময় বিভিন্ন কর্মচারী আহত হয়ে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। এবং যে কোন সময় প্রাণহানির আশংকা রয়েছে। বর্তমানে আমাদের এ মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ অফিস ভবনে কার্যক্রম করতে ভয় লাগে। অফিসে প্রবেশ করার সাথে সাথে উপরের ছাদের দিকে থাকিয়ে থাকতে হয়।
এ ব্যাপারে কুতুবদিয়া উপজেলা ভারপ্রাপ্ত জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী কামাল হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি জানায়, প্রায় অর্ধশত বছর পূর্বে নির্মাণ হওয়া ভবনটি বর্তমানে পরিত্যাক্ত হয়ে পড়েছে। ভবনটিতে অফিস কার্যক্রম চালানো সম্ভব হচ্ছে না। একাদিক বার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে আবেদন করা হলেও এখনো পর্যন্ত ভবন বরাদ্দ না দেওয়ায় ঝুকিপূর্ণ ভবনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অফিস কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। আগামী বর্ষা মৌসুম শুরুর আগে যদি ভবনটির জন্য বরাদ্দ দেওয়া না হয় তাহলে অফিস কার্যক্রম চালানো সম্ভব হবে না। এ ব্যাপারে কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালেহিন তানভীর গাজী জানায়, উপজেলার মাসিক সমন্বয় সভায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অফিস ভবনের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহন করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আওরঙ্গজেব মাতবর জানায়, দীর্ঘদিনের পুরানো জনস্বাস্থ্য অফিসের ভবনটিতে ফাটল ধরে বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অফিস কার্যক্রম চালাচ্ছে। আগামী বর্ষা মৌসুম শুরুর আগে যদি অধিদপ্তরের ভবনটি পূনঃ নির্মাণ করা না হয় তাহলে দপ্তরটির কার্যক্রম পরিচালনা করতে ব্যাঘাত সৃষ্টি হবে। এ জনগুরুত্বপূর্ণ দপ্তরটির সেবা থেকে জনগণ মুখ ফিরিয়ে নেবে। দপ্তরটির দাপ্তরিক কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনার নিমিত্তে ভবটি পূনঃ নির্মাণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Leave a Reply