Home / প্রচ্ছদ / রোহিঙ্গাদের বিষয়ে বাড়তি সতর্কতা জরুরী : জেলায় ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু

রোহিঙ্গাদের বিষয়ে বাড়তি সতর্কতা জরুরী : জেলায় ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু

Electionএম.বেদারুল আলম:

সারা দেশের ন্যায় জেলার কক্সবাজার সদর, উখিয়া এবং মহেশখালী উপজেলায় ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমের তথ্য সংগ্রহ ও নিবন্ধন প্রক্রিয়া। ইতোমধ্যে জেলা নির্বাচন অফিস কর্তৃক নিয়োগকৃত ৪৪০ জন তথ্য সংগ্রহকারি বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকায় অন্তভর্‚ক্ত হওয়ার যোগ্য ব্যক্তিদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহের প্রাথমিক কাজ শুরু করেছে। হালনাগাদ কার্যক্রমের প্রথম পর্যায়ে জেলার উক্ত ৩টি উপজেলায় ২৫ জুলাই থেকে ৯ আগস্ট পর্যন্ত তথ্য সংগ্রহের কাজ চলবে।

২০০০ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে যাদের বয়স ১৫ থেকে ১৭ বছরে উন্নীত হবে তাদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।

এ দিকে হালনাগাদ কার্যক্রমে তথ্য সংগ্রহকারিরা সদরের পিএমখালী, ঝিলংজা, ভারুয়াখালী, ঈদগাঁও সহ বিভিন্ন ইউনিয়নে কাজ শুরু করেছে। তবে প্রচারণা না থাকায় এখনো গ্রামে-গঞ্জের অনেক বাদ পড়া লোকজন জানে না। তবে বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রোহিঙ্গারা কৌশলে ভোটার হওয়ার জন্য তৎপর রয়েছে। এক্ষেত্রে তথ্য সংগ্রহকারিদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার উপর নির্ভর করছে রোহিঙ্গাদের তালিকা অন্তভর্‚ক্তি।

মহেশখালীতেও চলছে তথ্য সংগ্রহের কাজ। নিয়োগপ্রাপ্ত তথ্য সংগ্রহকারীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে কার্যক্রম চালালেও অনেকে প্রচারনার অভাবে পর্যাপ্ত সাড়া মিলছে না বলে অভিযোগ করেছেন। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ দিয়েছেন অনেকে।

উখিয়ায় ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে ৬৯ জন তথ্য সংগ্রহকারী ও ১৩ জন সুপারভাইজার মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু করেছে। তবে স্থানীয়দের অভিযোগ, চলতি ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য রোহিঙ্গারা তৎপর হয়ে উঠেছে।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, চলমান ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে যাদের বয়স ১৫ থেকে ১৭ বছরে উন্নীত হয়েছে সে সব নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ ক্ষেত্রে ভোটারযোগ্য ব্যক্তির পিতামাতার পরিচয় পত্রের সত্যায়িত কপি, পিতা ও মাতার মৃত্যু হলে মৃত্যু সনদের সত্যায়িত ফটোকপি, স্বামী/স্ত্রীর পরিচয় পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি (বিবাহিত ক্ষেত্রে), জন্ম নিবন্ধন সনদের সত্যায়িত ফটোকপি, চৌকিদারি/বিদ্যুত্ বিলের সত্যায়িত ফটোকপি, বিদেশ ফেরত ক্ষেত্রে বৈধ পাসপোর্টের সত্যায়িত ফটোকপি, বাসস্থানের ক্ষেত্রে ভোটার ইচ্ছুক ব্যক্তির জমিনের দলিল/খতিয়ানের সত্যায়িত ফটোকপি, ভূমিহীনদের ক্ষেত্রে ভূমিহীন সনদের মূল কপি, নিকটাত্মীয় ভাই, বোন, চাচা ও ফুফু সহ ৩ জনের পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি অবশ্যই তথ্য সংগ্রহকারীর নিকট জমাদান করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে নিকট আত্মীয় না থাকলে স্থানীয় চেয়ারম্যান কর্র্তৃক প্রত্যয়ন পত্র দাখিল করতে হবে। সর্বশেষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষাগত সনদের সত্যায়িত ফটোকপি, বাদ পড়া লোকদের ক্ষেত্রে চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রত্যয়ন পত্র (১৯৯৫ এর জন্ম হলে) দাখিল করতে হবে।

ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু হওয়ার ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন বা স্থানীয় প্রশাসন আগাম কোন প্রচারণা বা মাইকিং না করায় অনেকেই এ সম্পর্কে অবগত নয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য ছড়িয়ে ছিটিয়ে দীর্ঘদিন যাবত লোকালয়ে স্থায়ীভাবে অবস্থান করা রোহিঙ্গা নাগরিকেরা তৎপর হয়ে উঠেছে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

উপজেলা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী জানান, ১৯৯১ সালের শেষের দিকে অনুপ্রবেশকারী আড়াই লক্ষাধিক রোহিঙ্গা নাগরিককে প্রত্যাবাসনের একপর্যায়ে ২০০৫ সালের জুলাই মাসে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া স্থগিত হয়ে যাওয়াতে কুতুপালং ক্যাম্পে রয়ে গেছে প্রায় ১১ হাজার নিবন্ধিত রোহিঙ্গা নাগরিক। এছাড়াও ২০১০ সালের সীমান্তের নাফ নদী পার হয়ে রাতারাতি কুতুপালং বনভূমিতে আশ্রয় নেওয়া প্রায় ৫০ হাজার রোহিঙ্গা নাগরিকের সংখ্যা বেড়ে এখন ৭০ হাজারে উন্নীত হয়েছে। এসব রোহিঙ্গাদের অনেকেই স্থানীয় মেয়েদের বিয়ে করেছে। আবার একাধিক রোহিঙ্গা মেয়ে স্থানীয়ভাবে বিয়ে হওয়ার সুবাদে আত্মীয়ের বন্ধনে আবদ্ধ শত শত রোহিঙ্গা নাগরিক বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম জানান, রোহিঙ্গা যাতে ভোটার হতে না পারে সে জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

%d bloggers like this: