মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:১২ পূর্বাহ্ন

লাইলাতুল বরাত বা শবে বরাতের তাৎপর্য

http://coxview.com/wp-content/uploads/2022/01/Islam-1.jpg লাইলাতুল বরাত বা শবে বরাতের তাৎপর্য

http://coxview.com/wp-content/uploads/2022/01/Islam-1.jpg

লাইলাতুল বরাত বা শবে বরাতের তাৎপর্য

অনলাইন ডেস্ক :
‘শব’ ফারসি ‘শাব’ (شَبْ) শব্দ থেকে বাংলায় এসেছে, যার অর্থ হচ্ছে রাত বা রজনী। আর ‘বরাত’ শব্দটির মূলে ফারসি ও আরবি ‘বারা’আত’ (بَرائت) শব্দটি রয়েছে, যার অর্থ হচ্ছে সম্পর্কচ্ছেদ বা অব্যাহতি।

শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতকে ফার্সি ভাষায় শবে বরাত বলে। হাদীসে ‘লাইলতুল বরাত’ নামে এসেছে। শব অর্থ রাত এবং বরাত অর্থ মুক্তি। অর্থাৎ মুক্তির রাত। এ রাত্রে মহান আল্লাহ মুক্তি ও মাগফিরাতের দরজা খুলে দেন। শবে বরাত বা মধ্য-শা’বান (আরবি: نصف شعبان‎, প্রতিবর্ণী. নিসফে শাবান‎) বা লাইলাতুল বরাত হচ্ছে হিজরী শা’বান মাসের ১৪ ও ১৫ তারিখের মধ্যবর্তী রাতে পালিত মুসলিমদের গুরুত্বপূর্ণ রাত। ইসলামী বিশ্বাস মতে, এই রাতে আল্লাহ তার বান্দাদেরকে বিশেষভাবে ক্ষমা করেন। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের অনেক মুসলমান নফল ইবাদাতের মাধ্যমে শবে বরাত পালন করেন। অনেক অঞ্চলে, এই রাতে তাঁদের মৃত পূর্বপুরুষদের জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়ার জন্য প্রার্থনার আয়োজন করা হয়।

শব একটি ফারসী শব্দ এর অর্থ রাত। বারায়াতকে যদি আরবী শব্দ ধরা হয় তাহলে এর অর্থ হচ্ছে সম্পর্কচ্ছেদ, পরোক্ষ অর্থে মুক্তি। যেমন কোরআন মাজীদে সূরা বারায়াত রয়েছে যা সূরা তাওবা নামেও পরিচিত। ইরশাদ হয়েছে, بَرَاءَةٌ مِنَ اللَّهِ وَرَسُولِهِ التوبة: 1 অর্থ : আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের পক্ষ থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা। (সূরা তাওবা, ১) এখানে বারায়াতের অর্থ হল সম্পর্ক ছিন্ন করা। ‘বারায়াত’ মুক্তি অর্থেও আল-কুরআনে এসেছে। যেমন, أَكُفَّارُكُمْ خَيْرٌ مِنْ أُولَئِكُمْ أَمْ لَكُمْ بَرَاءَةٌ فِي الزُّبُرِ . سورة القمر :43 অর্থ : তোমাদের মধ্যকার কাফিররা কি তাদের চেয়ে শ্রেষ্ঠ? না কি তোমাদের মুক্তির সনদ রয়েছে কিতাবসমূহে? (সূরা কামার, ৩৪).

পবিত্র শবে বরাত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও বিশেষ তাৎপর্যময় রজনী। এ রাতে মহান আল্লাহতালা তার রহমতের দ্বার উন্মুক্ত করে দেন। পাপী বান্দাদের উদারচিত্তে ক্ষমা করেন, জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন- এ জন্য এ রাতকে শবে বরাত বলা হয়। ‘শবে বরাত’ ফার্সি ভাষার দুইটি শব্দ। ফার্সিতে ‘শব’ মানে রাত আর ‘বরাত’ মানে মুক্তি। সুতরাং ‘শবে বরাত’ এর অর্থ হলো মুক্তির রাত।

মহানবী (সা.) বলেন- রজব আল্লাহর মাস, শাবান আমার মাস, আর রমযান আল্লাহর সকল বান্দাদের মাস। (মা‘সাবাতা বিস সুন্নাহ)। যে পাঁচটি রাতে বিশেষভাবে দোয়া কবুল হওয়ার ওয়াদা করা হয়েছে তার মধ্যে শবে বরাতের রাত একটি, মহানবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই পাঁচ রাত্রিতে দোয়া নিশ্চিতভাবে কবুল হয়ে থাকে। (১) রজব মাসের প্রথম রাতে, (২) শবে বরাতের রাতে, (৩) ক্বদরের রাতে, (৪) ঈদুল ফিতরের রাতে, (৫) ঈদুল আযহার রাতে।’ (মা-ছাবাতা বিসসুন্নাহ)

কুরআন ও হাদীসে কোথাও লাইলাতুল বারাআত পরিভাষাটি ব্যবহার করা হয়নি। সাহাবী ও তাবিয়ীগণের যুগেও এ পরিভাষাটির ব্যবহার জানা যায় না। এ রাতটিকে হাদীস শরীফে লাইলাতুন নিসফি মিন শাবান বা মধ্য-শাবানের রজনী বলা হয়েছে। সাহাবী তাবিয়ীগণের যুগের অনেক পরে এ রাতটিকে লাইলাতুল বারাআত বা বিমুক্তির রজনী বলে আখ্যায়িত করার প্রচলন দেখা দেয়।

এ পবিত্র রাতের মাহাত্ম্য পূর্ণভাবে পেতে চাইলে আগে থেকেই দেহমন পবিত্র করে নিতে হবে। পাড়া-প্রতিবেশী, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব সবার হক আদায় করে দিতে হবে। কারো সঙ্গে কোনো অন্যায় করে থাকলে ক্ষমা চেয়ে নিতে হবে। আর আল্লাহকে পেতে হলে সারাবছরই নামাজ-রোজা, ইবাদত-বন্দেগি করে আল্লাহর সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক তৈরি করতে হবে। শবে বরাতের ইবাদত হলো নফল ইবাদত। প্রতিদিনের ফরজ ইবাদত যথাযথভাবে পালন করার পরই শবে বরাতের ইবাদতের সওয়াবের আশা করা যায়।

শবে বরাতের আলাদা কোন নামাজ তথা নির্দিষ্ট সুরা দিয়ে নির্দিষ্ট রাকাত পড়ার রেওয়াজ ইসলামে নেই। শবে বরাতের নামে রাস্তা-ঘাটে আতশবাজি, ফটকাবাজি, ঘর আলোকসজ্জা, রাতে মসজিদে অতিরিক্ত আলোকসজ্জ্বা করা, মরিচলাইট, তারাবাতি, আধুনিক নয়ানাভিরাম বর্ণিল বাতির ঝাড়ে দিগদিগন্ত পল্লাবিত করা, আগরবাতি, মোমবাতি, গোলাপজল, কবরে পুষ্প অর্পন, বাসাবাড়িতে খিচুড়ি পাকানো, হালুয়া রুটি, তাবারুক তৈরি ও মিষ্টান্ন বিতরণের ধুমধামে মত্ত থাকে। রাস্তা-হাটবাজারে যুবকদের আড্ডা, অশূচি প্রতোযোগীতা এসকল কাজ গর্হিত ও শরিয়ত পরিপন্থী। এগুলো অবশ্যই বর্জনীয়।

https://www.facebook.com/coxview

Design BY Hostitbd.Com