Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / আন্তর্জাতিক / স্কুলে বোমা হামলায় ৬০ জন নিহত: জেলেনস্কি

স্কুলে বোমা হামলায় ৬০ জন নিহত: জেলেনস্কি

https://i0.wp.com/coxview.com/wp-content/uploads/2022/05/Attck-Ukraine-9-5-22.jpg?resize=510%2C310

অনলাইন ডেস্ক :
পূর্ব ইউক্রেনের লুহানস্ক অঞ্চলের বিলোহোরিভকা গ্রামের একটি স্কুলে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর বোমা হামলায় অন্তত ৬০ জন নিহত হয়েছেন। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আজ সোমবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে লুহানস্ক অঞ্চলের গভর্নর সেরহি হাইদাই বলেন, বিলোহোরিভকার ওই স্কুল ভবনে ৯০ জন আশ্রয় নিয়েছিলেন। তাদের মধ্যে ৩০ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। হাইদাই বলেন, গত শনিবার রুশ যুদ্ধবিমান থেকে ওই ভবনে বোমা ফেলা হয়। শনিবারের হামলার পর ভবনটিতে আগুন ধরে যায়। প্রায় চার ঘণ্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়। এরপর ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার করে দুজনের মৃতদেহ পাওয়া যায়।

টেলিগ্রামে লুহানস্কের গভর্নর লেখেন, প্রায় চার ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা গেছে। এরপর ধ্বংসস্তূপের ভেতর থেকে দুজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ধ্বংসস্তূপ থেকে ৩০ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে, যাদের মধ্যে সাতজন গুরুতর আহত।

সামরিক অভিযান শুরুর পর থেকেই ইউক্রেন, যুক্তরাষ্ট্র এবং পশ্চিমা বিভিন্ন দেশ রুশ বাহিনীকে বেসামরিক লোকদের লক্ষ্যবস্তু এবং যুদ্ধাপরাধের জন্য অভিযুক্ত করে আসছে। যদিও এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে মস্কো।

লুহানস্কে ইউক্রেনীয় বাহিনীকে ঘিরে ফেলার চেষ্টা করছেন রুশ বাহিনী ও বিচ্ছিন্নতাবাদী যোদ্ধারা। সেখানে ভয়াবহ লড়াই চলছিল। আট বছর ধরে ওই এলাকাটি রুশ–সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ইউক্রেনীয় বাহিনী নিয়ন্ত্রিত সেভেরোদোনেৎস্ক শহরের নিকটবর্তী এলাকা বিলোহোরিভকা।

এদিকে ইউক্রেনের খারকিভে রুশ বাহিনীর দখল করা অঞ্চলে হামলা চালিয়ে বেশকিছু এলাকা শত্রুমুক্ত করার দাবি করেছে জেলেনস্কি বাহিনী। এর মধ্যেই বন্দরনগরী ওডেসায় ৬টি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। এতে বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। যুদ্ধবিমান ধ্বংসেরও পাল্টাপাল্টি দাবি করেছে মস্কো ও কিয়েভ।

বন্দরনগরী ওডেসায়ও ফের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। এতে বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। এছাড়া মারিউপোলের অবরুদ্ধ একটি কারখানা থেকে নারী ও শিশুসহ সবাইকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে জানান ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। দীর্ঘ সময় ধরে সেখানে আটকে থেকে খাবার ও পানি সংকটে পড়েছিলেন ইউক্রেনের অনেক নাগরিক।

জাতিসংঘ মহাসচিব গুতেরেস বেসামরিক নাগরিক নিহতের ঘটনায় শঙ্কা পুনর্ব্যক্ত করেছেন। তার মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক রোববার এক বিবৃতিতে বলেছেন, জাতিসংঘ মহাসচিব আশা প্রকাশ করেছেন যে, যুদ্ধের সময় বেসামরিক লোকজন এবং বেসামরিক অবকাঠামোকে সর্বদা রক্ষা করতে হবে।

%d bloggers like this: