Home / প্রচ্ছদ / কুতুবদিয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা এডঃ ফরিদুল ইসলাম চৌধূরী সংবর্ধিত

কুতুবদিয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা এডঃ ফরিদুল ইসলাম চৌধূরী সংবর্ধিত

10-7-2015 - Rasel - Kutubdia (Mohila Colleage) নিজস্ব প্রতিনিধি, কুতুবদিয়াঃ

কক্সবাজার জেলার দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ার প্রাণ কেন্দ্র বড়ঘোপ ইউনিয়নের আজম রোড় সংলগ্ন নব প্রতিষ্ঠিত কুতুবদিয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধূরীকে ৯ জুলাই(বৃহষ্পতিবার) কলেজেরে মিলনায়তনে এক অনাঢ়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যদিয়ে ফুল দিয়ে বরণ করে নিয়েছে কলেজের নব গঠিত শিক্ষক পরিষদ। পরে স্থানীয় সাংবাদিক ও গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে কলেজ পরিচালনা কমিটি। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া মতবিনিময় সভায় সভাপত্বি করেন কলেজের প্রধান উদ্যোক্তা ও কক্সবাজার সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক আখতার আলম। আলোচনা সভায় অথিতি হিসেবে উপস্থিত  ছিলেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ কুতুবদিয়া শাখার আহবায়ক শফিউল আলম, কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অংসা থোয়াই চাকমা, কুতুবদিয়া উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস.কে লিটন কুতুবী, সহ-সভাপতি অধ্যাপক আওরঙ্গজেব, কার্যনিবার্হী সদস্য মো. রাসেল। এসময় কুতুবদিয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজের শিক্ষক পরিষদ প্রতিনিধিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অত্র কলেজের অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক  মো.নজরুল ইসলাম,মানোবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক এনায়েত উল্লাহ, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মাহমুদুল করিম, হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক সাইদুল ইসলাম, বাংলা বিভাগের প্রভাষক মোঃ ওসমান গণি, ইংরেজী বিভাগের প্রভাষক আশেক ইলাহী, ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক মোঃ ইদ্রিচ, ইসলামের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক মোহাম্মদ ফিরোজ আলম, উচ্চমান সহকারী শাহিন ফতেমা পান্না, নিম্নমান সহকারী নিপা দাশ। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন অফিস সহায়ক কর্মচারীবৃন্দ। আলাচনা সভায় বক্তারা বলেন, কুতুবদিয়া মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠা অত্র এলাকার সাংসদ আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিক ও জেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতা এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীর রাজনৈতিক প্রজ্ঞার পরিচয় বহন করে। কলেজের সমৃদ্ধি অর্জনে তাদের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করা হয়। সেই সাথে পবিত্র ঈদুল ফিতরের পরেই কলেজের নির্মিত ক্যাম্পাস শুভ উদ্ভোধন এবং স্থায়ী ক্যাম্পাসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের দাবী জানানো হয়। আলোচনা সভা শেষে অধ্যাপক আওরঙ্গজেবের মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ইফতারের আয়োজন করা হয়।

Leave a Reply