Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / অপরাধ, আইন-আদালত / চকরিয়ায় মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় ও মাথা উদ্ধার

চকরিয়ায় মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় ও মাথা উদ্ধার

হত্যা রহস্য উৎঘাটনে জিজ্ঞাসাবাদ করতে এক নারী পুলিশ হেফাজতে

ফাইল ফটো

 

 

মুকুল কান্তি দাশ; চকরিয়া :

কক্সবাজারের চকরিয়ায় মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় উৎঘাটনের পরদিন কাটা মাথা উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার দুপুর দেড়টার দিকে খুটাখালী ইউনিয়নের বাককুমপাড়া এলাকায় গত শুক্রবার সকালে লাশ পাওয়া ঘটনাস্থলের অদূরে কাদামাটির ভেতর থেকে মাথাটি উদ্ধার হয়। এর পূর্বে শনিবার সন্ধ্যায় মস্তকবিহীন লাশের পরিচয় মেলে। হত্যায় তালতো ভাই জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদ করতে তার স্ত্রীকে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

খুটাখালীর লোকজন থেকে খবর পেয়ে শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে বাককুমপাড়ার ধানখেত থেকে মস্তকবিহীন একটি লাশ উদ্ধার হয়। ব্যাপক অনুসন্ধানের পর ওই খণ্ড লাশের পরিচয় মেলে শনিবার সন্ধ্যায়। লাশটি পার্বত্য জেলা বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাঁশিয়াখালী ইউনিয়নের রইঙ্গাজিরি এলাকার নূর মোহাম্মদের ছেলে মোজাহের মিয়া (৩২) এর। বাবা নূর মোহাম্মদ ছেলে লাশ সনাক্ত করেন। পরিচয় উৎঘাটনের পরও পুলিশ নিখোঁজ মাথা উদ্ধার করতে চেষ্টা অব্যাহত রাখে।

স্থানীয় জনতার সহায়তায় লাশ পাওয়া ঘটনাস্থলের অদূরেই ধানখেতের কাঁদামাটি নাড়াচাড়া করতে গিয়ে মাথাটি উদ্ধার হয় রবিবার দুপুর দেড়টার দিকে। পরিচয় উৎঘাটন ও বিচ্ছিন্ন মাথা উদ্ধার হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন মামলার আইও মোহাম্মদ আলমগীর।

এদিকে গলার উপরীভাগ থেকে মাথা বিচ্ছেদ করে মোজাহের মিয়াকে কেন হত্যা করা হয়েছে তার সঠিক তথ্য উৎঘাটন হয়নি। তবে স্থানীয় লোকজন ধারণা করে বলছেন স্থানীয় তালতো ভাইয়ের  সাথে বিরোধ ছিল নিহত মোজাহেরের। ওই বিরোধের জের ধরে হত্যাকান্ড ঘটতে পারে। এ আশংকার প্রেক্ষিতে সন্দিগ্ধ তালতো ভাইকে খুঁজেও পায়নি পুলিশ। ফলে স্বামীর অবস্থান জানতে স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই হেফাজতে নেয়া হয়েছে বলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক মোহাম্মদ আলমগীর বলেন। লাশ পাওয়ার পরেই থানার এসআই অপু বড়ুয়া বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামী দেখিয়ে চকরিয়া থানায় দায়ের করা হত্যা মামলার তদন্ত অফিসার নিয়োগ দেয়া হয় এসআই আলমগীরকে।

চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, মস্তকবিহীন যুবকের কাটা মাথা উদ্ধার ও নাম-পরিচয় উৎঘাটন হয়েছে। এখন অনুসন্ধান চলছে কেন এ নৃশংস হত্যা হয়েছে এবং কারা হত্যায় জড়িত তা খুঁজে বের করতে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: