Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / জীবন, প্রকৃতি ও পরিবেশ / ঝিনুকমালা খেলাঘরের বৃক্ষরোপনে বক্তারা- প্রতিটি ধর্মে বৃক্ষরোপনের গুরুত্ব রয়েছে

ঝিনুকমালা খেলাঘরের বৃক্ষরোপনে বক্তারা- প্রতিটি ধর্মে বৃক্ষরোপনের গুরুত্ব রয়েছে

বার্তা পরিবেশক :
কক্সবাজার জেলার কৃতি জাতীয় শিশু -কিশোর সংগঠন ঝিনুকমালা খেলাঘর আসর বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালন করেছে। অতিথি, কর্মকর্তা, ছাত্র-ছাত্রী ও শিশু-কিশোররা উৎসবমুখর পরিবেশে প্রত্যেকে একটি করে চারা রোপন করেন। উত্তরণ গৃহায়ণ সমবায় সমিতি আয়োজিত ৭ দিনব্যাপী বৃক্ষরোপন অভিযানে ১০ আগষ্ট ঝিনুকমালা খেলাঘরের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন করা হয়।

বৃক্ষরোপনের সময় বক্তারা বলেন- ‘আজকের শিশু আগামি দিনের ভবিষ্যত। এই ভবিষ্যত প্রজন্মদের বাঁচিয়ে রাখতে দরকার পৃথিবীটাকে বাসযোগ্য করে গড়ে তোলা। আর বাসযোগ্য পৃথিবী গড়তে হলে বৃক্ষরোপনের বিকল্প নাই।’

 

বক্তারা আরো বলেন- ‘পরিবেশ ধ্বংসের কারনে পৃথিবী ক্রমান্বয়ে বিপর্যয়ের মুখে ধাবিত হচ্ছে। তাই সময় থাকতে বিপর্যয় থেকে রক্ষা করতে গাছ লাগাতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। প্রতিটি ধর্মে বৃক্ষরোপনকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।’

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ এম.এম. সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা সমবায় অফিসার মো: আবদুলস লতিফ, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা এস এম কামাল উদ্দিন, সাংবাদিক ফজলুল কাদের চৌধরী, উত্তরণের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ আহমদ, জেলা খেলাঘর আসরের সভাপতি আবুল কাশেম বাবু, সাধারণ সম্পাদক করিম উল্লাহ, জেলা গ্রাম ডাক্তার কল্যাণ সমিতির সভাপতি ডা: চন্দন কান্তি দাশ, ঝিনুকমালা খেলাঘর আসরের সভাপতি সুবিমল পাল পান্না, উত্তরণের সদস্য এস.এম নজরুল ইসলাম। খেলাঘর জাতীয় পরিষদ সদস্য বিশ্বজিত পাল বিশুর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত এ সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঝিনুকমালা খেলাঘরের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক দীপক শর্মা দীপু।

মৌলানা ফজলুল হকের কুরআন তেলওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন উত্তরণের সদস্য গিয়াস উদ্দিন ও জেনারেল ম্যানেজার দেলোয়ার হোসেন।

উত্তরণের বিশাল জমি সবুজে আচ্ছাদিত করা এবং ব্যাপক বৃক্ষরোপন করে কক্সবাজারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, মাঠ প্রাঙ্গন সবুজায়ন করায় শিক্ষাবিদ এম.এম. সিরাজুল ইসলামের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয় উক্ত সভায়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: