Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / পূর্বের স্থানে বহালের দাবী কমিউনিটি পুলিশের : ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রটি স্থানান্তরিত হলে, নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়বে

পূর্বের স্থানে বহালের দাবী কমিউনিটি পুলিশের : ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রটি স্থানান্তরিত হলে, নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়বে

 

এম. আবু হেনা সাগর; ঈদগাঁও :

দক্ষিণ চট্টলার বৃহত্তর বানিজ্যিক নগরী ঈদগাঁওতে নবনির্মিত পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ভবনের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে, প্রহর গুণছে এখন আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের। তবে এ তদন্ত কেন্দ্রটি বাজার এলাকা থেকে দূরবর্তী স্থানে স্থানান্তরিত হলে নিরাপত্তা চরম হুমকির মুখে পড়ার আশংকা প্রকাশ করেছেন সচেতন মহল। অনেকের মাঝে এই নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়াও সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, কক্সবাজার সদর উপজেলার বিপুল জনসংখ্যা অধ্যুষিত বৃহত্তর ঈদগাঁওয়ের আইন শৃংখলা নিয়ন্ত্রণে প্রতিষ্ঠিত পুলিশ ফাঁড়ি ক্রমান্বয়ে তদন্ত কেন্দ্রে রুপান্তরিত হওয়ায় ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রটি দীর্ঘ বছর ধরে বাজারের অস্থায়ী একটি ঘরে ছোট্ট পরিসরে আইন শৃংখলা রক্ষার কাজ করছিল। দেরীতে হলেও ঈদগাঁওর হাজার হাজার জনগণ ও প্রশাসন সংশ্লিষ্টদের প্রাণের দাবি ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র অবশেষে ইসলামাবাদের তেতুলতলীতে নিজস্ব জায়গার উপর ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা প্রকল্পের বহুতল ভবনটি সরকার প্রতিষ্ঠা করছে। দিপংকর-কাশেম নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বিগত এক বছর পূর্ব থেকে আধুনিক সুবিধা সম্বলিত দৃষ্টিনন্দন বহুতল ভবনের নির্মান কাজ প্রায় শেষাংশের পথে। ইতিমধ্যে ভবনের নির্মান কাজ সম্পন্ন করে দেওয়ালের বাহ্যিক কাজও করতে দেখা যায়। ভবনের চতুর্পাশে তৈরী করা হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনি, পাশপাশি তদন্ত কেন্দ্রের চার পাশের লোহার গ্রীলের বাউন্ডারী। এখন শুধু অপেক্ষা উদ্বোধনের ।

তবে স্থানীয়দের মতে, যথা সম্ভব তদন্ত কেন্দ্রটি নিজস্ব ভবনে স্থানান্তরিত হবে, ততটাই সেবা আদান প্রদানের ক্ষেত্রে প্রশাসন ও জনগণ উপকৃত হবে। কারণ প্রশাসনের কাজের গতিতে প্রাণ চাঞ্চল্য ফিরে আসবে। এ ভবন বাস্তবায়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদারের মতে, আধুনিক সুবিধা সম্বলিত বহুতল ভবনটির যাবতীয় কাজ সম্পন্ন। তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে হস্তান্তরের অপেক্ষায়। যে কোন সময় সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তার হাত দিয়েই এই চমৎকার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের নতুন ভবনটির উদ্বোধন হবে।

তবে স্থানীয় লোকজনের মতে, তদন্ত কেন্দ্রটি বর্তমান স্থান হতে স্থানান্তরিত হলে পুরো বাজার এলাকায় নিরাপত্তা চরমভাবে হুমকির মুখে পড়বে। এ বাজারে সপ্তাহিক দুই দিন হাট বাজার ছাড়াও প্রতিনিয়ত ১০/১২ হাজার লোকজন প্রয়োজনীয় নানা কাজে কর্মে আসা যাওয়া করে। এমনকি সরকারী বে-সরকারী ৮/১০টির মত ব্যাংক রয়েছে। যাতে করে ঐসব ব্যাংকে লাখ লাখ টাকার লেনদেন হয়। পাশাপাশি রয়েছে বহু বেসরকারী বীমা কোম্পানী। আবার এ বাজারে ৭/৮ টির মত হাসপাতালও রয়েছে। অন্যদিকে বৃহত্তর ঈদগাঁও বাজার ও বাসস্টেশন মিলে প্রায় তিন হাজারের মত বিভিন্ন ব্যবসায়ীক দোকান পাট রয়েছে। এসবের দিকে বিবেচনা করে তদন্ত কেন্দ্রেটি পূর্বের স্থানে বহাল রাখার দাবী জানিয়েছে বৃহত্তর কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি।

তবে বাজারের ব্যবসায়ী ও সাধারণ লোকজনের দাবী, তদন্ত কেন্দ্রটি অপরাপর ইউনিয়ন, বাজার ও স্টেশন থেকে দূরবর্তী হওয়ায় সাধারণ মানুষজন নিরাপত্তাহীনতায় ভোগবে। বাড়বে হরেক রকম অপরাধ অপকর্ম। তবে এলাকার লোকজন পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রটি ঈদগাঁও বাজারে পূর্ণ বহাল রেখে নতুন ভবনটি হাইওয়ে পুলিশ কিংবা অন্য কোন সরকারী দপ্তরকে দেওয়ার জন্য উধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ বিষয়ে ঈদগাঁও বাজার ব্যবসায়ী পরিচালনা পরিষদের সাবেক আহবায়ক সিরাজুল ইসলাম, ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রটি অন্যত্রে চলে গেলে পুরো বাজারের ব্যবসায়ী সমাজ চরম হুমকির মুখে পড়বে। বাজারের দোকানপাট নিরাপত্তাহীনতায় পড়বে বলে জানান। অন্যদিকে কালিরছড়া বাজার ব্যবসায়ী কমিটি সভাপতি জসিম উদ্দিন, তদন্ত কেন্দ্রটি পূর্বের স্থান থেকে চলে গেলে জননিরাপত্তা চরম হুমকির মুখে পড়ার আশংকা প্রকাশ করেন।

ঈদগাঁও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির এজিএম প্রকৌশলী মাসুদুর রহমান জানান- জেলার সবচেয়ে বড় ঈদগাঁও বাজারে থাকলে তদন্ত কেন্দ্রটির কাছ থেকে তাৎক্ষণিক যে সুবিধাটা পাবে ঈদগাঁওবাসী, দুরে চলে গেলে সেইটি থেকে বঞ্চিত হবে লোকজন। তিনিও নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান চৌধুরী জানান- নতুন ভবণে তদন্ত কেন্দ্র হলেও  বাজার এলাকায় পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপনের দাবী।

ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইরফানুল করিম মুঠোফোনে এ প্রতিনিধিকে জানান- বাজারে তদন্ত কেন্দ্রটি বহাল রাখা হোক অন্যতায় বাজারবাসীর নিরাপত্তা বিঘ্নিত হবে।

ঈদগাঁও কমিউনিটি পুলিশের সাধারণ সম্পাদক কাইয়ুম উদ্দিন ডিসেন্ট জানান- ঈদগাঁও বাজার সহ পার্শ্ববর্তী উপ- বাজারের ব্যবসায়ী, ব্যাংক-বীমা, হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্টান সহ সর্বপুরি নিরাপত্তা নিশ্চিত করণে ঈদগাঁওতে পূর্বের স্থানে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রটি রাখার জোর দাবী।

Leave a Reply

%d bloggers like this: