Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / অপরাধ, আইন-আদালত / ফেইসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি করে মন্তব্য করায় কক্সবাজারে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা

ফেইসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি করে মন্তব্য করায় কক্সবাজারে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে একের পর এক কটুক্তিমূলক মন্তব্য করায় চৌফলদন্ডীর এস.এম ছৈয়দুল করিমকে আসামী করে কক্সবাজার তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। কক্সবাজার জেলা পরিষদের সদস্য ও কক্সবাজার সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল করিম মাদু বাদী হয়ে ১০ অক্টোবর কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট তামান্না ফারাহ্ এর আদালতে মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি আদালত গ্রহন করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য ওসি, কক্সবাজার সদর মডেল থানাকে নির্দেশ দেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের দক্ষিন মাইজপাড়ার ছলিম উল্লাহর পুত্র এস.এম ছৈয়দুল করিম তার ব্যবহৃত S M Syedul Karim নামক আইডি থেকে গত ২৮ সেপ্টেম্বর’১৭ থেকে ০৭ অক্টোবর’১৭ ইং তারিখ পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে এবং সরাসরি কটুক্তিমূলক, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানিকর, আপত্তিকর, উস্কানিমূলক ও মানহানিকর মন্তব্য করেছেন।

মামলার বিবরণে আরো জানা যায়, উল্লেখ্যযোগ্য মন্তব্যগুলোর মধ্যে গত ২৮সেপ্টেম্বর’ ১৭ইং রাত ১০.৪২ টায় “ডিজিটাল উন্নয়নের নমুনা” শীর্ষক একটি তালিকা দিয়া শিরোনাম দেয় “ঘুমাও জাতি ঘুমাও, ঘুম থেকে উঠে দেখবা জয় হিন্দ হইয়া গেছে” নামক মন্তব্য করেছেন। একইভাবে গত ৬ অক্টোবর’ ১৭ইং তারিখ সকাল ৯.২৬ টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নোবেল পুরস্কার পাওয়া বা না পাওয়া সংক্রান্ত বিষয়কে কেন্দ্র করে “আমি রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছি, তার জন্য শান্তির নোবেল পুরস্কারে আজকে আমার নাম ঘোষণা করা হবে”। একই দিন বিকাল ৪.০৩ টার সময় চলচ্চিত্র অভিনেতা “নোবেল” এর কার্টুন ছবি সম্বলিত ব্যাঙ্গাত্মক ছবি দিয়ে শিরোনাম দেয় “নোবেল আমি পাওয়ার কথা ছিল, পাই নাই তার জন্য আমি এখন কাইন্দা দিমু, কারণ যারা নোবেল পায় নাই তারাই জানে না পাওয়ার যন্ত্রণা কি।” একই দিন ০৪.১২ টার সময় “নোবেল কমিটির ক্যান্সার হয়েছে, সেটা কিউ না জানলেও আমি জানি, চিকিৎসার জন্য ছুটি দিয়ে বাসায় বন্দি করে রাখা হউক”।

তাছাড়াও গত ০৭ অক্টোবর’ ১৭ ইং বিকাল ১৭.৩০ টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন শেষে দেশে ফিরে আসাকে কেন্দ্র করে আক্রমনাত্মক, মানহানিকর, আপত্তিকর, কটুক্তিমুলক ও উস্কানিমূলক মন্তব্য করেন। উক্ত স্ট্যাটাসে “মাদার অব হিউম্যানিটি”কে কটাক্ষ করে “মাদার অব ইনহিউম্যানিটি” আখ্যা দেন। একইভাবে “গণতন্ত্রের মানসকন্যা”কে কটাক্ষ করে সবশেষে “প্রাইম মিনিস্টার ইজ এ কিলার অফ ডেমোক্রেসি” উল্লেখ করেছেন। এতে করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শত কোটি টাকার মানহানি হয়েছে বলে বাদী মামলায় উল্লেখ করেন।

এ ব্যাপারে মামলার বাদীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মামলা দায়েরের ঘটনা স্বীকার করেন এবং তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহারের মাধ্যমে আসামী এ জাতীয় মন্তব্য করে আমার সংগঠনকে উস্কানি দিয়েছেন। এতে আমরা চরমভাবে ক্ষুব্দ হয়েছি। উক্ত মন্তব্যের কারণে প্রধানমন্ত্রীসহ দেশবাসীর অনুভূতিতে চরমভাবে আঘাত হেনেছে এবং বিশ্ব দরবারে প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে। তিনি অভিযুক্ত ব্যক্তির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন।

বাদীর পক্ষে নিয়োজিত কৌসুঁলী ছিলেন কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির উদীয়মান তরুন আইনজীবী ও কক্সবাজার সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এডভোকেট একরামুল হুদা ও এডভোকেট ইমরুল কায়েস মানিক।

এ প্রসংগে বাদীর নিয়োজিত এডভোকেট একরামুল হুদা’র সাথে যোগাযোগ করলে তিনি মামলা দায়েরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিশ্ব শান্তির অগ্রদূত মানবতাবাদী নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উক্ত আসামীর আইডি থেকে যে কটুক্তিমূলক মন্তব্য করেছেন তা নিন্দনীয় ও আইনত: অপরাধমূলক। মামলাটি আদালত গ্রহণ করে ওসি কক্সবাজার সদর মডেল থানাকে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। এ মামলাটি দায়েরের খবর শুনে আদালত পাড়ায় আলোচনার ঝড় উঠে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: