Home / প্রচ্ছদ / জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হতভাগী মা আসমা

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হতভাগী মা আসমা

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হতভাগী মা আসমা

এম.আর মাহবুব, কক্সভিউ:

বাবার দাবীর যৌতুকের দু’লাখ টাকা হতভাগী মা দিতে না পারায় পাষণ্ড বাবার মুখ দেখা হয়নি সদ্য ভূমিষ্ট যমজ শিশু সিজান, জিসানের। শুধু তাই নয়-যমজ দু’ফুটফুটে পুত্র সন্তান জন্ম দিয়েই অধিক রক্তক্ষরণে হতভাগী মা আসমা আক্তার (১৯) কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এতে করে বিনা চিকিৎসায় প্রসূতি মায়ের জীবনের পাশাপাশি দু’যমজ শিশু সন্তানের জীবন বাঁচার দায় হয়ে পড়েছে। এই ন্যাক্কারজনক ঘটনাটি ঘটেছে কক্সবাজার সদর উপজেলার পি.এমখালীর ছনখোলায়।

দু’পুত্র সন্তান জন্মদানের খবর পেয়ে পালিয়ে বেড়ানো পাষন্ড বাবা নুরুল আমিন বাহাদুর (২৪) ছনখোলা নয়াপাড়ার মৃত নুরুল হকের পুত্র। আর তার বিবাহিত স্ত্রী, দু’পুত্র সন্তান জন্ম দিয়ে মৃত্যুপথ যাত্রী আসমা আক্তার (১৯) স্থানীয় মাদলিয়া পাড়ার মৃত মমতাজ আহমদের কন্যা।

স্থানীয় সূত্রে ও হতদরিদ্র আসমার পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নুরুল আমিন বাহাদুর পেশায় রাজমিস্ত্রি। তার হেলপার মোহাম্মদ রশিদ (২১) আসমার ভাই। পেশার কারণে যাওয়া-আসার সুযোগে দু’বছর আগে রশিদের ছোট বোন আসমার প্রেমে পড়ে রাজমিস্ত্রি নুরুল আমিন বাহাদুর। পরবর্তীতে বাহাদুর-আসমার সম্পর্ক শারীরিক সম্পর্কে রূপ নেয়। এতে আসমা গর্ভবতী হয়ে পড়ে। বিষয়টি টের পেয়ে বাহাদুর আসমাকে কক্সবাজার শহরে এনে বেশ ক’বার গর্ভপাতের চেষ্টা চালায়। কিন্তু এতিম আসমা বাহাদুরের আবদারে পাত্তা না দিয়ে বিয়ের জন্য চাপ দেয়। প্রেমিক বাহাদুর প্রথমে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও পরবর্তীতে স্থানীয় মেম্বার রমজান ও মহিলা মেম্বার শাহিনার সামনে স্বীকারোক্তি দিয়ে বাহাদুর ২২ আগস্ট কাবিননামা মূলে দু’লাখ টাকা দেনমোহরে আসমাকে বিয়ে করে। আসমার ভাই আবদুর রশিদ জানান-বিয়ের পর গর্ভবতী বোনকে ঘরে তুলতে ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে বোনজামাই নুরুল আমিন বাহাদুর।

আমরা দিনমজুর। বোনের দিকে তাকিয়ে নগদ ৩০ হাজার টাকা বাহাদুরের হাতে গুঁজে দিয়েও মন গলাতে পারিনি। অবশেষে ১৮ সেপ্টেম্বর বিকেল ৪টায় আসমা কোল জুড়ে জন্ম নেয় দু’যমজ পুত্র সন্তান। নানা বাড়ির স্বজনরা নাম রাখে সিজান, জিসান। কিন্তু সিজান, জিসানের গর্ভধারিনী মা আসমা অধিক রক্তক্ষরণে দ্রুত অসুস্থ হয়ে পড়তে থাকে। পরে হতদরিদ্র স্বজনরা আসমাকে মুমূর্ষু অবস্থায় ২৮ সেপ্টেম্বর ভর্তি করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডে। মুমূর্ষু আসমাকে প্রতিদিন এক ব্যাগ রক্ত দিয়ে বাঁচাতে সর্বোত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে চিকিৎসকরা।

অন্যদিকে মায়ের মুমূর্ষুতায় দুধ না পেয়ে কাহিল নবাগত যমজ সিজান, জিসান। বর্তমানে ১৩ দিন বয়সী সিজান, জিসান হতদরিদ্র বিধবা নানীর ঘরে চিনির পানি খেয়ে কোনক্রমে বেঁচে আছে।

অভিযোগ রয়েছে-আসমার সন্তান জন্মদানের খবর পেয়ে পাষণ্ড নুরুল আমিন বাহাদুর এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় মেম্বার মাওলানা রমজান জানান-এতিম আসমার সর্বনাশ ঘটিয়ে ২ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য স্ত্রী, সন্তানের মুখ না দেখে বাহাদুর নির্মমতার পরিচয় দিয়েছে।

স্থানীয় সমাজ সেবক নবী উল্লাহ জানান-বাহাদুরের মতো পাষণ্ড স্বামী বাবাকে আইনের আওতায় আনা না গেলে আসমা, সিজান, জিসানরা বারবার জীবন যুদ্ধে হেরে যাবে।

Share

Leave a Reply

Advertisement

x

Check Also

https://coxview.com/wp-content/uploads/2023/01/BGB-Rafiq-24-1-23.jpeg

বিপুল পরিমাণ পপিক্ষেত ধ্বংস করল বিজিবি

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম; লামা-আলীকদম : পার্বত্য জেলা বান্দরবানে থানচি উপজেলা গহীণ অরণ্যে মাদক দ্রব্য প্রস্তুতকারক ...

https://coxview.com/coxview-com-footar-14-12-2023/