Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / অপরাধ, আইন-আদালত / চকরিয়ায় ভিটের সীমানা বিরোধ নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে যুবক নিহত : আহত-৬

চকরিয়ায় ভিটের সীমানা বিরোধ নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে যুবক নিহত : আহত-৬

প্রতিকী ছবি

মুকুল কান্তি দাশ; চকরিয়া :

বসত-ভিটের সীমানা বিরোধ নিয়ে প্রতিপক্ষের দা’য়ের কুপে নেজাম উদ্দিন (৩০) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। এসময় উভয় পক্ষের ছয়জন আহত হয়। কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের স্টেশনপাড়া এলাকায় মঙ্গলবার দুপুর ২টায় সংঘর্ষে আহত নেজাম সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে মারা যায়। এনিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নিহত নেজাম উদ্দিন স্টেশন পাড়ার মো.লালু মিয়ার ছেলে। এক পক্ষের আহতরা হলেন-মো.লালু মিয়া (৫২), তাঁর ছেলে মো.এহেছান (১৭), লালুর ভাই রুহুল আমিন (৪৬) ও তাঁর ছেলে মোহাম্মদ হোসেন (১৮)। অন্যপক্ষের আহত তিনজনের নাম পাওয়া যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়ম, মঙ্গলবার দুপুর দুইটার দিকে স্টেশনপাড়া এলাকার মনজুর আলম বসত-ভিটায় ঘেরা-বেড়া ও রান্না ঘর তৈরীর কাজ করছিল। এসময় ওই জমি নিজেদের দাবি করে প্রতিপক্ষ মো.লালু মিয়া বাঁধা দেন। এনিয়ে তর্কাতর্কির একপর্যায়ে মনজুর আলমের লোকজন লালু মিয়ার মাথায় দা দিয়ে কোপ দেন। পরে দুইপক্ষ দেশিয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে আরও ছয়জন আহত হন। পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতদের মধ্যে মো.লালু মিয়া ও তাঁর ছেলে নেজাম উদ্দিনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। পথিমধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরের বহদ্দারহাট এলাকায় পৌঁছালে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে নেজাম উদ্দিন মারা যান।

বিএমচর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘ভিটের সীমানা বিরোধ নিয়ে মনজুর আলম গত সোমবার সন্ধ্যায় আমার কাছে বিচার দেন। আগামি বৃহস্পতিবার ইউপি কার্যালয়ে বিষয়টি নিয়ে বসার কথা ছিল। এরমধ্যে দুইপক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে চট্টগ্রাম মেডিকেলে নেওয়ার পথে নেজাম উদ্দিন নামের এক ব্যক্তি মারা যান।’

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বসত-ভিটের বিরোধের জের ধরে বিএমচর ইউনিয়নে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে কয়েকজন আহত হওয়ার খবর শুনেছি। তবে নিহত হওয়ার বিষয়টি সঠিক কিনা খোঁজ নিচ্ছি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: