Home / প্রচ্ছদ / সাম্প্রতিক... / শাহপরদ্বীপে ১০৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পুন:নির্মাণ হচ্ছে স্বপ্নের বেড়ীবাঁধ

শাহপরদ্বীপে ১০৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পুন:নির্মাণ হচ্ছে স্বপ্নের বেড়ীবাঁধ

গিয়াস উদ্দিন ভুলু; টেকনাফ :

অবশেষে দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের দক্ষিণ সীমান্ত এলাকা শাহপরদ্বীপ বাসীর। বিগত ৫ বছর আগে বঙ্গোপসাগরের উত্তাল ঢেউয়ের তোড়ে ভেঙে যায় শাহপরদ্বীপ পশ্চিম পাড়া এলাকার বেড়ীবাঁধের বিশাল একটি অংশ। প্রচন্ড জোয়ারের আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত এবং পানির সাথে বিলীন হয়ে যায় প্রায় ৪ কিলোমিটার চলাচলের রাস্তা। সাগরে বিলীন হয়ে যায় শত শত বাড়ীঘর ও ফসলী জমিন। এরপর থেকে দিনের পর দিন, বছরের পর বছর চরম দুর্ভোগ ও ঝুঁকির মুখে বসবাস করছে এই দ্বীপের সাধারন মানুষ। তারপর ভেঙে যাওয়া বেড়ীবাঁধটি পুন:নির্মাণ করার জন্য জোর দাবী নিয়ে রাস্তায় নেমে আসে দ্বীপে বসবাস করা হাজার হাজার জনতা। মানববন্ধন থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রকার কর্মসূচি দিয়ে সরকারের কাছে দাবী তুলে ধরে আসছে স্থানীয় জনপ্রতিনিদিসহ আপাময় জনতা। অবশেষে দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর স্থানীয় সাংসদ আব্দুর রহমান বদির সহযোগীতায় সেই ভেঙে যাওয়া বেড়ীবাঁধটি পুন:নির্মাণ হতে যাচ্ছে।

বাঁধটি পুন:নির্মাণ করার জন্য ১০৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। তার পাশাপাশী বাঁধটি দীর্ঘস্থায়ী টেকসই, মজবুত করে এই কাজটি সঠিক ভাবে বাস্তবায়ন করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনীকে। সেই সূত্র ধরে ১৯ অক্টোবর সকাল ১১টায় সাবরাং হারিয়াখালী ভাঙা রাস্তায় মাথায় এই প্রকল্পটি উন্নয়ন কাজের ফলক উন্মোচন করে শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করা করা হয়। শুভ উদ্বোধনী অনুষ্টানে প্রধান অথিতি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদি।

সুত্রে আরো জানা যায়,সাগরের করাল গ্রাস থেকে দ্বীপবাসীকে রক্ষা করার জন্য দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবী পশ্চিমপাড়া সংলগ্ন ৬৮নং পোল্ডারের সী-ডাইক অংশের প্রতিরক্ষা বেড়িবাঁধ পুন:নির্মাণ কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। এতে দ্বীপবাসীর মাঝে দেখা দেয় আনন্দের গন জোয়ার।

উক্ত অনুষ্টানে সভাপতিত্ব করেন কক্সবাজার জেলা যুবলীগের সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ। উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবরাং ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেনের পরিচালনায়, প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাংসদ আবদুর রহমান বদি বলেন, বেড়ীবাঁধ নির্মাণে কোন প্রকার দূর্নীতি সহ্য করা হবেনা। মাটি নিতে কেউ বাধা সৃষ্টি করলে কঠোর ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বেড়ীবাঁধ জোড়া লাগা মাত্রই সাবরাং-শাহপরীরদ্বীপ সড়কের কাজ শুরু করা হবে।তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার উন্নয়নে বিশ্বাসী।

ভূখন্ড রক্ষা ও মানুষের ভোগান্তি লাঘবে সরকার নিরলসভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় শাহপরীরদ্বীপের বেড়ীবাঁধ পুনঃনির্মাণ কাজ শুরু হচ্ছে। তিনি বলেন, শাহপরীরদ্বীপসহ টেকনাফের বিভিন্ন সীমান্ত পয়েন্ট দিয়ে লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ কারণে বেড়িবাঁধ সমুহ বিলীন হয়ে যাচ্ছে।এতে হুমকীর মুখে পড়েছে উপকুলীয় এলাকাগুলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরো কক্সবাজারকে উন্নয়নে ঢেলে সাজানোর জন্য ৯৫হাজার কোটি টাকার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন শুরু করেছেন। তা বাস্তবায়িত হলে পুরো কক্সবাজারের চেহারাই বদলে যাবে। বিশ্বের অত্যাধূনিক মডেলের পর্যটন কেন্দ্র সমুহকে হার মানিয়ে বিশ্বে পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণীয় হিসেবে পুরো কক্সবাজারই গড়ে উঠবে। এইজন্য আগামী জাতীয় নির্বাচনেও জননেত্রী শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থীকে বিপূল ভোটে বিজয়ী করে আওয়ামী লীগকে আবারো ক্ষমতায় আনার আহবান জানানো হয়। এতে আরো জানানো হয় এমনিতে প্রাকৃতিক দূর্যোগে শাহপরীরদ্বীপ প্রতিরক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে স্থানীয় মানুষের জীবনে দূর্ভোগ নেমে এসেছে।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য মোহাম্মদ শফিক মিয়া, টেকনাফ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাফর আহমদ, কক্সবাজার জেলা পাউবোর এক্সিয়েন শফিকুর রহমান, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রধান নৌবাহিনীর লেঃ কর্ণেল আব্দুর রাজ্জাক।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ্ব সোনা আলী, টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা জহির হোসেন (এমএ) প্রমুখ।

এছাড়া টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহেদ হোসেন ছিদ্দিক, নৌবাহিনীর লেঃ কর্ণেল আব্দুল মালেক, টেকনাফ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) শেখ আশরাফুজ্জামান, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলম বাহাদুরসহ উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড পর্যায়ের আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগের নেতাকর্মী এবং স্থানীয় জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।

এতে বক্তারা বলেন, শাহপরীরদ্বীপ-সাবরাং বাসীর দুঃখ-দূর্দশা লাঘবে বর্তমান সরকার এই প্রকল্প একনেকে অনুমোদনের পর শাহপরীরদ্বীপের ৬৮নং পোল্ডারের সী-ডাইক অংশের প্রতিরক্ষা বেড়িবাঁধ ১০৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পুন:নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। এতেই এই অঞ্চলের বাস্তুহারা মানুষ তাদের ঠাঁই খুঁজে পাবে। তাই নয়। সরকার এসব বেড়িবাঁধ রক্ষার ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে আসন্ন বর্ষায় উপকূলীয় মানুষের জীবনে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করা হয়। এরপর অতিথিবৃন্দ এই প্রকল্পের নির্মাণ কাজের আনুষ্ঠানিক ফলক উন্মেচন করে বিশেষ মোনাজাত করেন।

উল্লেখ্য, ১০৬ কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নে এবং নারায়নগঞ্জের সেনাকান্দায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ডকইয়ার্ড এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড এই কাজ শুরু করেছেন। ৭ফুট উচু বেড়িবাঁধ, দীর্ঘ ৩কিলোমিটার আরসি ব্লক দ্বারা এই প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়িত হবে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে কোন প্রকার অনিয়ম, দুর্নীতি মেনে নেওয়া হবেনা আর স্থানীয় কোন মহল এই প্রকল্প বাস্তবায়নে বাঁধা দাড়ালে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এই প্রকল্পের মেয়াদ আগামী ২০১৯সালের জুন হলেও আগামী ২মাসের মধ্যে উক্ত এলাকায় জোয়ার-ভাটার পানি প্রবেশ বন্ধ করা এবং বছরের মধ্যে টেকসই, মজবুত প্রতিরক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

আরো উপস্থিত ছিলেন সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার গন ও মহিলা মেম্বার সহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, জাতীয় শ্রমিকলীগ, স্বেছাসেবকলীগসহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply

%d bloggers like this: