Home / প্রচ্ছদ / নাইক্ষ্যংছড়ি বাইশারীর রাবার বাগানে ফের ডাকাতি : আহত ১

নাইক্ষ্যংছড়ি বাইশারীর রাবার বাগানে ফের ডাকাতি : আহত ১

shafiq - 01780099800, Cox'sBazar, Bangladesh.

নুরুল আলম সাঈদ, নাইক্ষ্যংছড়ি :

বান্দরবান পার্বত্য জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বৃহত্তর বাইশারী রাবার বাগানে আবারও সশস্ত্র ডাকাত দল হানা দিয়েছে ।

১৬ জুন (রবিবার) মধ্যরাত ১১.৪৫ টার সময় বাইশারী ইউনিয়নের সদর থেকে ৫ কিলোমিটার পূর্বে বাকখালী রোড়ের ১১ নং নাজমা খাতুন রাবার বাগানে ১২-১৪ জনের সশস্ত্র একটি ডাকাত দল প্রবেশ করে ডাকাতির চেষ্টা চালায়। এ সময় নাজমা খাতুন রাবার বাগানের স্টাফ কোয়াটারে সশস্ত্র ডাকাত দল প্রবেশের চেষ্টাকালে, ওই রাবার বাগানের নিরাপত্তা কর্র্মীদের প্রতিরোধের মূখে ডাকাত দল পিছু হঠে। ডাকাতি চেষ্টাকালে ডাকাতদল ৭-৮ রাউন্ড গুলি ছুড়ে বলে স্থানীয় সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ সময় নাজমা খাতুন রাবার বাগানের নিরাপত্তা কর্মী মোঃ উসমান (১৯) গুলি ও ছুরির আঘাতে গুরুতর আহত হন। আহত ব্যক্তি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়নের কম্বনিয়া এলাকার ছালেহ আহমদের পুত্র। আহত নিরাপত্তা কর্মী মোঃ উসমানকে রাবার বাগান কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ উদ্ধার করে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। কক্সবাজার সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিত্সক উসমানের অবস্থা আশংকাজনক দেখে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হস্তান্তর করেন। বর্তমানে উসমান চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিত্সাধীন আছেন।

জানা যায়, বাইশারী এলাকায় গত সাড়ে ৭ মাসের মধ্যে ২১ বার ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতির ঘটনায় এই এলাকার মানুষকে ভাবিয়ে তোলেছে এবং প্রতিনিয়ত বাইশারী এলাকার মানুষ আতংকে দিন কাটাচ্ছে বলে জানান।

ঘটনার পর ১৭ আগস্ট ভোর সাড়ে ৫টায় বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ আনিসুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেন এবং ডাকাতির চেষ্টা ও হামলার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

এ বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আবুল খায়ের জানান- বাইশারী ইউনিয়নটি ডাকাতিকবল এলাকায় পরিণত হয়েছে। এই বিষয়ে সরকারকে কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়া দরকার। ১৬ আগস্ট সংগঠিত নাজমা খাতুন রাবার বাগানে ডাকাতির ঘটনার বিষয়ে বাইশারীর আইসি (পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ) থেকে খবর পেয়ে তড়িত্ গতিতে এই বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করতে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছি।

এ বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান তোফাইল আহমদ বলেন- নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়ন, নাইক্ষ্যংছড়ি সদর থেকে একটি বিচ্ছিন্ন এলাকা। রামু উপজেলা ও কক্সবাজার সদর উপজেলা, চকরিয়া উপজেলা দাগী সন্ত্রাসীরা বাইশারীর রাবার বাগানে প্রায় সময় ডাকাতি করে তাদের নিজ এলাকায় এবং জঙ্গলে পালিয়ে যায়। এজন্য তাদের ধরা যায় না। সীমান্ত সমস্যার কারনে এই ডাকাত দল প্রায় সময় অধরা থেকে যাচ্ছে। আমি জেলা ও উপজেলার ৩ থেকে ৪টি আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় এই এলাকায় ডাকাতি বন্ধে সরকারী পদক্ষেপসহ বাইশারী এলাকায় আরো ৩-৪টি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র নির্মাণ ও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র গুলিতে পর্যাপ্ত পুলিশ নিয়োগের জন্য জোর দাবী করি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: